বিপদে পড়ে টাকা ধার নিয়েছিলেন। পাওনাদারদের গঞ্জনা সহ্য করতে না পেরে শেষপর্যন্ত সন্তানকে বিষ খাইয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করলেন এক দম্পতি। অচৈতন্য অবস্থায় তিনজনকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করেছেন স্থানীয় বাসিন্দারা।  স্বামী ও স্ত্রীর শারীরিক অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানা গিয়েছে। মর্মান্তিক ঘটনাটি ঘটেছে উত্তর চব্বিশ পরগণা বসিরহাটে।

স্ত্রী ও একমাত্র সন্তানকে নিয়ে বসিরহাটের কদমতলা এলাকায় থাকেন সাধন মজুমদার। পেশায় তিনি কাঠের ব্যবসায়ী। গত কয়েক বছরে ব্যবসা একেবারেই ভালো চলছিল না বলে জানা গিয়েছে। স্থানীয় বাসিন্দারা জানিয়েছেন, ব্যবসার হাল ফেরাতেই লক্ষাধিক টাকা ঋণ নেন সাধন। কিন্তু টাকা শোধ করতে পারছিলেন না। রোজই বাড়িতে পাওনাদারদের আনাগোনা লেগে থাকত। টাকা না পেয়ে সাধনকে তাঁরা অশ্লীল ভাষা গালিগালাজ করতেন বলে অভিযোগ। আত্মীয়দের দাবি, পাওনাদারদের গঞ্জনা মানসিক অবসাদে ভুগছিলেন সাধন ও তাঁর ববিতা।

আরও পড়ুন: ঠান্ডা থেকে বাঁচতে গিয়ে ঘটল বিপর্যয়, বেঘোরে মত্যু দশ বছরের বালকের

জানা গিয়েছে, বৃহস্পতিবার রাতে ঘরের দরজা বন্ধ করে প্রথমে চার বছরের ছেলে বিষ খাওয়ান সাধন। তারপর বিষ খেয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন ওই যুবক ও তাঁর স্ত্রী। এদিকে দীর্ঘক্ষণ ডাকাডাকি করেও সাড়া না পেয়ে সন্দেহ হয় আত্মীয়দের।  শেষপর্যন্ত ঘরের দরজা ভেঙে ফেলেন তাঁরা। সাধন, তাঁর স্ত্রী ও ছেলেকে অচৈতন্য অবস্থায় উদ্ধার করে প্রথমে নিয়ে যাওয়া হয় বসিরহাট মহকুমা হাসপাতালে। শারীরিক অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়া স্বামী ও স্ত্রীকে পাঠিয়ে দেওয়া কলকাতা। তাঁরা আরজিকর হাসপাতালে ভর্তি বলে জানা গিয়েছে।