জয় শ্রীরাম নিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে ফের বিঁধলেন মুকুল রায়। তাঁর অভিযোগ, রাজনৈতিক উদ্দেশ্য নয়, ধর্মীয় ভাবাবেগ থেকেই জয় শ্রীরাম ধ্বনি উঠছে। আর তাতে রেগে গিয়ে অপরিণত মানসিকতার পরিচয় দিচ্ছেন মুখ্যমন্ত্রী। সোমবার সল্টলেকে একটি অনুষ্ঠানে গিয়ে এমনই মন্তব্য করেন মুকুল। 

পশ্চিম মেদিনীপুরের পরে সম্প্রতি উত্তর চব্বিশ পরগনার জগদ্দলেও মমতাকে লক্ষ্য করে জয় শ্রীরাম স্লোগান দেওয়া নিয়ে উত্তেজনা ছড়ায়। বিজেপি বনেতাদের অভিযোগ, জয় শ্রীরাম ধ্বনি সহ্য করতে পারছেন না মুখ্যমন্ত্রী। পাল্টা ফেসবুক পোস্ট করে মমতা অভিযোগ করেন, রাম নাম করা নিয়ে তাঁর কোনও আপত্তি নেই। কিন্তু বিজেপি জয় শ্রীরামের মতো ধর্মীয় কথাকে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে ব্যবহার করছে। মঙ্গলবার নবান্নে বিধায়কদের সঙ্গে বৈঠকের পরেও একই অভিযোগ করেন মমতা। মুখ্যমন্ত্রীর অভিযোগ, তাঁর কথার অপব্যাখ্যা করা হচ্ছে। 

মুকুল রায়ের অবশ্য দাবি, কোনও রাজনৈতিক উদ্দেশ্য নয়, ধর্মীয় ভাবাবেগ থেকেই জয় শ্রীরাম ধ্বনি দেওয়া হচ্ছে। মুকুল বলেন, "এটা আমার ভাবাবেগ থেকে আমি বলছি। তাতে যদি কেউ আঘাত পায় তাহলে আমার কী করণীয় আছে?" মমতাকে কটাক্ষ করে মুকুল আরও বলেন, "যাঁদের মানসিক সমস্যা আছে, তাঁরা এই ভাবে রেগে যান। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তো বাংলার মুখ্যমন্ত্রী, তাঁকে এগুলো মানায় না।"

জয় শ্রীরাম নিয়ে যে বিজেপি কোনওভাবেই মমতা এবং শাসক দলের উপরে চাপ কমাবে না, মুকুল রায়ের বক্তব্যেই তা ফের স্পষ্ট হয়ে গেল। রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের ধারণা, জয় শ্রীরাম স্লোগান নিয়ে যত রাজনৈতিক উত্তাপ চড়বে, মমতা ক্ষুব্ধ হবেন, ততই মেরুকরণের রাজনীতির ফায়দা তুলবে বিজেপি। গেরুয়া শিবিরও তা ভাল ভাবেই বুঝে গিয়েছে। জয় শ্রীরাম স্লোগানে তীব্র প্রতিক্রিয়া দিয়ে মুখ্যমন্ত্রীই তাদের সেই সুযোগ করে দিয়েছেন বলেই মত রাজনৈতিক মহলের।