আমপাড়া নিয়ে  বিবাদে বড় ছেলের হাত থেকে বাবাকে খুন হওয়া থেকে বাঁচাতে দাদাকেই কুপিয়ে খুন ভাইয়ের।কেউ যেন এখনো বিশ্বাস করে উঠতে পারছে না। এই ঘটনায় রবিবার গভীর শোকের ছায়া নেমে এসেছে মুর্শিদাবাদের বর্তনাবাদ এলাকায়। 

আরও পড়ুন, 'মাঝরাতে হেসেই চলেছেন গৃহিনী', 'অশরীরী' নাকি 'ষড়যন্ত্র', ভয়ে ঘুম উড়ল শহরবাসীর 

 

 

প্রতিদিন সকাল সন্ধ্যা এই গরমে আম বাগানে মাচার উপর বসে বাপ ছেলেতে খোশগল্প চলে নিয়ম করেই। তা বলে আচমকা সেই গল্প থেকেই হঠাৎই সামান্য গাছের পাকা আম পাড়াকে কেন্দ্র বাবা-ছেলের বিবাদ তুলকালাম জায়গায় পৌঁছে গিয়ে একে অপরকে কেটে ফেলার জন্য মুখিয়ে উঠবে। আর শেষ পর্যন্ত বড় ছেলের হাঁসুয়ার কোপ থেকে বাবাকে বাঁচাতে গিয়ে দাদাকে খুন করতে হবে ভাইকে।এই ঘটনায় রবিবার গভীর শোকের ছায়া নেমে এসেছে মুর্শিদাবাদের বর্তনাবাদ এলাকায়। মৃতের নাম নজিবর বিশ্বাস(৩৮)। স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, ঐ ঘটনাকে কেন্দ্র করে প্রথমে নজিবরের  সঙ্গে তার বাবা সোলেমান বিশ্বাসের বিবাদ বাধে গাছের আম পাড়া নিয়ে। সেই সময় নজিবর তার বাবাকে মারধর করে বলে অভিযোগ। পাল্টা সোলেমান সাহেবও তার ছেলে নজিবরকে হাঁসুয়া দিয়ে কেটে ফেলার চেষ্টা করে। কিন্তু দৈহিক শক্তির জোরে বড় ছেলেকে পেরে না ওঠায় উল্টে সোলেমনসাহেব গুরুতর জখম হয়ে মুর্শিদাবাদ মেডিক্যালে ভর্তি রয়েছেন।

আরও পড়ুন, ধেয়ে আসছে ৩০-৪০ কিমি বেগে ঝোড়ো হাওয়া, আজ বজ্রবিদ্যুৎ প্রবল বর্ষণ বঙ্গে  


 এদিকে বাবাকে মারতে দেখে তার ভাই মজিবর বিশ্বাস বাবাকে বাঁচাতে হাঁসুয়া নিয়ে দাদার উপর ওপর হামলা চালায়। ঘটনায় গুরুতর জখম নজিবরকে স্থানীয়রা চিৎকার শুনে আশঙ্কাজনক অবস্থায় উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানে চিকিৎসক তাকে মৃত বলে ঘোষণা করেন। এ দিনের শেষ পাওয়া খবরে জানা যায়,  অভিযোগের ভিত্তিতে দাদাকে খুনের ঘটনায় ভাই মজিবরকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। উল্লেখ্য, ঘটনায় ধৃত খুনিকে জেরার জন্য আবেদন জানিয়ে সোমবার পুলিশি হেফাজত চেয়ে আদালতে তোলা হবে।