সরকার ছাড় দিয়েছে, কিন্তু বেঁকে বসেছেন খোদ বাস মালিকরাই। লকডাউনে পরিবহণ নিয়ে অচলাবস্থা অব্যাহত উত্তর দিনাজপুরে। পরিষেবা চালু করার তো প্রশ্নই নেই। বরং সরকারকেই বাস অধিগ্রহণের প্রস্তাব দিয়েছে রায়গঞ্জ মোটর ওনার্স অ্যাসোসিয়েশন। চটজলদি সিদ্ধান্ত কার্যকর করার পক্ষপাতী নন খোদ তৃণমূল কংগ্রেসের শ্রমিক সংগঠনের জেলা সভাপতি অরিন্দম সরকারও।

আরও পড়ুন: রাজ্য়ের শর্তে বাস নামালে লোকসান, ক্ষতির আশঙ্কায় উল্টো পথে বেসরকারি বাস মালিকরা

শুনসান রাস্তা, বন্ধ দোকানপাঠ। লকডাউনের জেরে মানুষের দুর্ভোগ কি এবার কমবে? আশার কথা শুনিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় স্বয়ং।  বুধবার নবান্নে সাংবাদিক সম্মেলনে তিনি জানিয়েছেন, সোমবার থেকে গ্রিনজোনে চলবে বেসরকারি বাস। তবে বাসে ২০ জনের বেশি যাত্রী নেওয়া যাবে না। কিন্তু তাতে আর সমস্যা মিটছে কই! রায়গঞ্জ মোটর ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সম্পাদক প্লাবন প্রামাণিক বলেন, লকডাউনের জেরে ব্যবসা লাঠে উঠেছে। সরকারি সিদ্ধান্ত মানতে গেলে লোকসান আরও বেশি। কুড়ি জন যাত্রী নিয়ে বাস নামানো যাবে না।  তাহলে উপায়? সরকার যদি বাস অধিগ্রহণ করে, তাহলে অবশ্য পরিষেবা চালু করতে আপত্তি নেই বাসমালিকদের। কারণ সেক্ষেত্রে বাড়তি টাকা পাওয়া যাবে। 

আরও পড়ুন: রেশনে 'কারচুপি', ডিলারের বাড়ির সামনে আগুন জ্বালিয়ে বিক্ষোভ গ্রাহকদের

আরও পড়ুন: টিকিয়াপাড়া কাণ্ডে কড়া পদক্ষেপ নিল পুলিশ, গ্রেফতার প্রধান অভিযুক্ত শাকিব সহ আরও ১৩

সরকারি সিদ্ধান্ত মেনে বাসমালিক যে আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়বেন, সেকথা কার্যত মেনে নিয়েছেন তৃণমূল কংগ্রেসে শ্রমিক সংগঠনের উত্তর দিনাজপুরের জেলা সভাপতি অরিন্দম সরকারও। তিনি বলেন, তাড়াহুড়ো করে সিদ্ধান্তই কার্যকর করা হবে না। মালিক ও শ্রমিকপক্ষ আলোচনার পর প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ করা হবে।