খোদ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর পোস্টারেই মাথা কাটা। আর তা ঘিরেই সকাল থেকে উত্তেজনা ছড়াল পূর্ব মেদিনীপুরের তমলুকে। 

ঘটনাটি ঘটে তমলুক পুরসভার বারো নম্বর ওয়ার্ডে। অভিযোগ, নির্বাচনের প্রচারের জন্য সেখানে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর ছবি দেওয়া একটি বড় ব্যানার লাগানো হয়। সেই ব্যানারেই প্রধানমন্ত্রীর ছবির মাথা কেটে নিয়েছে কেউ বা কারা। 

এ দিন সকালে এই ঘটনা প্রকাশ্যে আসতেই উত্তেজনা ছড়ায় এলাকায়। একইভাবে পাশের একটি পোস্টারেও প্রধানমন্ত্রীর ছবির অর্ধেক অংশ কেটে নেওয়া হয়েছে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে জড়ো হন এলাকায় বিজেপি-র নেতা কর্মীরা। ঘটনাস্থলে আসে তমলুক থানার পুলিশও। পুলিশ এসে ছেঁড়া পোস্টারের ছবি তুলে নিয়ে যায়। পুলিশ এবং বিজেপি নেতাদের ধারণ, সোমবার রাতেই এই ঘটনা ঘটনো হয়েছে। যদিও, প্রধানমন্ত্রীর ছবির পাশেই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের একটি বড় ছবি থাকলেও সেটি অবিকৃতই রয়েছে। 

বিজেপি নেতৃত্বের দাবি, 
তমলুক শহরে আগে কখনও এমন ঘটনা দেখা যায়নি। এই ঘটনা ঘটিয়ে বিজেপির ভাবাবেগে আঘাত করা হয়েছে।
 ঘটনাটি সম্পর্কে  ইতিমধ্যে দলের ঊর্ধ্বতন নেতৃত্বকে জানানো হয়েছে। সেই সঙ্গে পুলিশেও অভিযোগ জানানো হয়েছে। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে তমলুক থানার পুলিশ। বিজেপি নেতা মধুসূদন প্রামাণিকের অভিযোগ, "তমলুক শহরে সন্ত্রাস করে বিজেপি-কে দমিয়ে রাখার চেষ্টা করা হচ্ছে।"  বিজেপি-র অভিযোগের আঙুল তৃণমূলের দিকে হলেও ঘটনার সঙ্গে তাঁরা যুক্ত নন বলেই পাল্টা দাবি করেছেন শাসক দলের নেতারা। 

এবার লোকসভা নির্বাচনে পূর্ব মেদিনীপুরের দু'টি আসনেই জিতেছেন তৃণমূল প্রার্থী শিশির অধিকারী এবং দিব্যেন্দু অধিকারী। তবে এবার তাঁদের জয়ের মার্জিন বেশ কিছুটা কমেছে। এই জেলাতেও নিজের উপস্থিতি জানান দিয়েছে বিজেপি। পূর্ব মেদিনীপুরে ভোট প্রচারেও এসেছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।