খড়গপুরে অবসরপ্রাপ্ত রেলকর্মীকে খুনের কিনারা করে ফেলল পুলিশ। ধরা পড়েছে তিন অভিযুক্ত। তবে প্রণয়ঘনিত কারণে নয়, লুট-পাঠের উদ্দেশ্যে ষাটোর্ধ্ব ওই বৃদ্ধকে খুন করা হয়েছে। তেমনই দাবি তদন্তকারীদের।

মৃতের নাম জেবি সুব্রহ্মণ্যম।  বাড়ি কেরলের কাজিপুরে। রেলের চাকরির সুবাদে খড়গপুরে আসেন সুব্রহ্মণ্যম। আর ফিরে যাননি। চাকরি থেকে অবসর নেওয়ার পরে খড়গপুর পুর এলাকায় রেলের আবাসনেই থাকতেন ওই বৃদ্ধ।  পুলিশ জানিয়েছেন, সোমবার সকালে বাড়িতে কাজ এসে পরিচারিকাই প্রথম ঘাটের উপর হাত-পা বাঁধা অবস্থায় সুব্রহ্মণ্যম-এর দেহটি পড়ে থাকতে দেখেন। পরিচারিকার চিৎকারে ছুটে আসেন স্থানীয় বাসিন্দারা। 

আরও পড়ুন: অস্ট্রেলিয়ার দাবানলে আতঙ্ক, জঙ্গলমহলে মানুষকে সচেতনতার বার্তা পড়ুয়াদের\

প্রাথমিক তদন্তে জানা যায়, খড়গপুর শহরে রেলের আবাসনে একাই থাকতেন জেবি সুব্রহ্মণ্যম। তাঁর সঙ্গে এক মহিলার সম্পর্ক ছিল। রবিবার দুপুরে ওই মহিলার বাড়িতে গিয়েছিলেন ওই বৃদ্ধ। তাহলে কি প্রণয়ঘটিত কারণে খুন? তেমনটাই ভেবেছিলেন তদন্তকারীরা। পরে দেখা যায়, নিহতের বাড়ি থেকে বেশ কয়েকটি দামী গয়না উধাও হয়ে দিয়েছে।  সেই গয়নার সূত্র ধরেই খড়গপুর শহর থেকে সুধীর দাস, টি শংকর রাও ও মোহন রাও নামে তিনজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ধৃতদের কাছে মিলেছে গয়নাও। সেক্ষেত্রে লুঠের উদ্দেশ্যেই অবসরপ্রাপ্ত ওই রেলকর্মীকে খুন করা হয়েছে বলে দাবি করেছে তদন্তকারীরা। এদিকে আবার ধৃতদের মধ্যে দু'জন খড়গপুর পুরসভার অস্থায়ী কর্মী বলে জানা গিয়েছে।