ক্রমশই নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাচ্ছে পরিস্থিতি। নাগরিকত্ব আইনের বিরুদ্ধে বিক্ষোভের নামে বোমাবাজির অভিযোগ উঠল প্রতিবাদকারীদের বিরুদ্ধে। যার জেরে গুরুতর জখম হলেন এক পুলিশ আধিকারিক  ছাড়াও দুই পুলিশ কর্মী। ঘটনার পর থেকেই চরম উত্তজনা ছড়িয়েছে হাওড়ার সাঁকরাইলে। এলাকায় পুলিশ পিকেটের পাশাপাশি চলছে টলদারি। দোষীদের ধরতে এলাকায় অভিযান চালাচ্ছে পুলিশ।   

দেশ জ্বলছে-ওনারা পোশাক দেখে বেড়াচ্ছেন, মোদীকে খোঁচা দিদির

এমনিতেই গত চার দিন ধরে উত্তাল পরিস্থিতি ছিল হাওড়ার বিভিন্ন প্রান্তে । মঙ্গলবারও একই রকমভাবে নাগরিকত্ব ও এনআরসি নিয়ে বিক্ষোভে নামে মানুষ। সাঁকরাইল-এর বিভিন্ন অংশে বিক্ষোভকারীরা পুলিশকে লক্ষ্য় করে ইট ছোড়ে বলে অভিযোগ। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাচ্ছে দেখে বিকেলের দিকে নিজেই সাঁকরাইলের তিন কপাতি পোল এলাকায় নামেন  ডি সি হেডকোয়াটার।  

রাজ্য়ে 'লুঙ্গি সন্ত্রাসে' মদত দিচ্ছেন মমতা, মুখ্য়মন্ত্রীকে পাল্টা আক্রমণ দিলীপের

শুরু হয় লাঠি চার্জ। বিক্ষোভকারীদের ইট থেকে বাঁচতে  কাঁদানে গ্যাসের সেল ফাটানো হয়। অভিয়োগ এরপরই পুলিশকে লক্ষ্য় করে অনবরত বোমা ছুড়তে থাকে বিক্ষোভকারীরা। সেই সময় ঘাতক বোমায় গুরুতর আহত হন ডিসি ও তার সহকারী দুই পুলিশ কর্মী । ইতিমধ্য়েই তাদের উদ্ধার করে আন্দুলের এক বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে । এলাকায় অভিযান চালাচ্ছে পুলিশ । এখনও এলাকায় উত্তেজনা রয়েছে ।