বুদ্ধদেব পাত্র, পুরুলিয়া: আনলক পর্বে দলবদল, করোনা আতঙ্কের মাঝেই ঘর গুছিয়ে নিল বিজেপি ও তৃণমূল। রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড শুরু হয়ে গেল পুরুলিয়ায়। এবার তাহলে মিটিং-মিছিলও হবে? তা এখনও স্পষ্ট নয়। 

করোনার আতঙ্ক কমেনি। তবে লকডাউনের কড়াকড়ি আর নেই। ধীরে ধীরে ফের স্বাভাবিক ছন্দ ফিরছে জনজীবনে। 'আনলক' প্রক্রিয়া শুরু হয়ে গিয়েছে রাজ্যে। মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশের রাস্তায় নেমেছে সরকারি বাস, অটো-ট্যাক্সি, এমনকী অ্য়াপ ক্যাবও। এই যখন পরিস্থিতি, তখন রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডই বা থেমে থাকবে কেন!  

পুরুলিয়া শহরের ভাটবাঁধ ও কাটিপাড়া এলাকায় সোমবার ২৫টি পরিবার যোগ দিল বিজেপিতে। তাঁদের হাতে দলের পতাকাতুলে দিলেন বিজেপি জেলা সভাপতি বিদ্যাসাগর চক্রবর্তী। লকডাউন পর্ব শেষ হওয়া পর্যন্ত কি অপেক্ষা করা যেত না? গেরুয়াশিবিরের দাবি, তৃণমূল নামক ভাইরাসের উৎপীড়নে সাধারণ মানুষের আর তর সইছে না। সকলেই বিজেপিতে যোগ দিতে চাইছেন। সেই দাবি মেনেই ২৫টি পরিবারকে দলের সদস্য করা হল।

পিছিয়ে নেই তৃণমূলও। পুরুলিয়ার রঘুনাথপুরে দলবদল করল ২০০টি পরিবার। তাদের কেউ বিজেপি সমর্থক ছিল, তো কেউ আবার সিপিএম। সোমবার ওই দুশো পরিবারের সদস্যের হাতে দলের পতাকা তুলে দিলেন স্থানীয় তৃণমূল বিধায়ক পূর্ণচন্দ্র বাউরি। তিনি বলেন, বিপদের সময়ে যেভাবে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্য়ায়ের মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন, তাতে উৎসাহিত হয়ে দলে দলে মানুষ উৎসাহিত হয়ে শাসকদলের যোগ দিতে চাইছে।