পরনে অপরিচ্ছন্ন পোশাক, উশকো খুশকো চুল। কিন্তু তাঁর কন্ঠে মুগ্ধ নেটিজেনরা। এই মুহূর্তে নেট দুনিয়ায় ভাইরাল রানাঘাটের রানুর গান। ভিডিও-তেই স্পষ্ট দারিদ্রে ঘেরা রাণু মারিয়া মণ্ডলের জীবন। তাই স্টেশনে বা প্ল্যাটফর্মে দিন কাটে তাঁর। সেখানে বসেই গেয়েছিলেন ইয়ে পেয়ার কা নগমা হ্যায়। সেই গানের ভিডিও ভাইরাল হতেই সোজা ডাক পেয়েছেন মুম্বই থেকে। 

রানুর গানের গলা সত্যি চমকে দেওয়ারই মতো। দারিদ্র, অপরিচ্ছন্ন পোশাক, এসব কিছুকে ছাপিয়ে এগিয়ে গিয়েছে রাণুর গানের গলা। রানাঘাট প্ল্যাটফর্মে বসে গান গাওয়ায় পথ চলতি মানুষ তাঁকে ২-৪ টাকা দিয়ে যান। এভাবেই পেট চলে রানুর। সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হতেই তাঁর এই প্রতিভা প্রকাশ্যে চলে আসে। আর তার পরেই তাঁর সুরেলা গলায় মোহিত হয়েছেন নেটিজেনরা। এখন শুধু প্ল্যাটফর্মে নয়। তাঁর বাড়িতেও ভিড় জমাচ্ছেন অনেকে। 

 

 

অভাবের সংসার রানুর। এক মেয়েও  ছিল তাঁর। কিন্তু মানসিক ভারসাম্য হারিয়ে মেয়ের কথাও ভুলেছেন তিনি। কিন্তু এখন আবার নতুন করে জীবন শুরু করার পালা রানুর। মুম্বইয়ের একটি বেসরকারি চ্যানেল থেকে রাণুকে যোগাযোগ করা হয়েছে। কিন্তু মানসিক ভারসাম্যহীন রানুর কাছে কোনও পরিচয় পত্র নেই। ভিনরাজ্যে বা ভিনদেশে পাড়ি দিতে গেলেই প্রয়োজন  হয় পরিচয় পত্রের। তাই এটি তাঁর অগ্রগতির পথে একটি বাধা হয়ে দাঁড়াচ্ছে। 

কিন্তু সে সবকে গুরুত্ব না দিয়ে নিজের মনেই গেয়ে চলেছেন রানু। কখনও পেয়ার কা নাগমা হ্যায়, কখনও বন্দে মাতরম, আরও কত কী! তবে এর মাঝেও মেয়ের কথা মাঝে মাঝেই মন পড়ে তাঁর। মেয়ে স্বাতী রায় জানিয়েছেন। খুব শীঘ্রই তিনি আসবেন দেখা করতে।তাই গানের মাঝেই মেয়ের অপেক্ষায় দিন কাটছে তাঁর।