গরুমারার পর এবার জলদাপাড়া। ডুয়ার্সের অভয়ারণ্যে খুন হয়ে গেল একটি গন্ডার।  ঘটনার নেপথ্যে চোরাশিকারীরা। অন্তত তেমনই অনুমান বনদপ্তরের। বন আধিকারিকদের ধারনা, বুধবার গভীর রাতে জলদাপাড়ায় অভয়ারণ্যে ঢুকে ফিফটি ফোর বিট এলাকা গন্ডারটিকে গুলি করে মেরেছে চোরাশিকারীরা।  শুধু তাই নয়, গন্ডারের একটি খড়গও কাটা ছিল বলে জানা গিয়েছে। ঘটনার তোলপাড় শুরু হয়ে গিয়েছে।

ডুয়ার্সের জলদাপাড়া অভয়ারণ্যে গন্ডারের সংখ্যা প্রায় শতাধিক। বৃহস্পতিবার সকালে যখন অভয়ারণ্যে রুটিন টলহদারি চালাচ্ছিলেন বনকর্মীরা, তখন জঙ্গলের কোর এলাকার একটি পূর্ণবয়স্ত গন্ডারের মৃতদেহ পড়ে থাকতেন দেখেন তাঁরা। বনকর্মীরা জানিয়েছেন, গন্ডারটির একটি খড়গ কাটা ছিল এবং শরীরের বেশ কয়েকটি জায়গায় গুলির ক্ষতও ছিল। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছন বনদপ্তর আধিকারিক। মৃত গন্ডারটির ময়নাতদন্ত হয়। এদিকে জলদাপাড়া অভয়ারণ্য লাগোয়া বনবস্তির বাসিন্দাদের দাবি, রাতে জঙ্গলে তাঁরা গুলির শব্দ শুনছিলেন। বনদপ্তর আধিকারিকের ধারনা, চোরশিকারীরাই গন্ডারটিকে মেরে খড়গ নিয়ে পালিয়েছে।

এরআগে ২০১৭ সালে গরুমারা অভয়ারণ্যে চোরাশিকারীদের হাতে প্রাণ গিয়েছিল এক গন্ডারের। সেই ঘটনার তদন্ত করেছিল সিআইডি। বারবার অভয়ারণ্যে নিরীহ পশুদের মৃত্যুর ঘটনায় জাতীয় উদ্যানের নিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।  এদিকে গন্ডার মৃত্যুর ঘটনার পর জলদাপাড়া অভয়ারণ্যে জারি হয়েছে হাই অ্যালার্ট। চলছে নাকা চেকিং। নির্দিষ্ট রুট ছাড়া অন্য কোনও রুটে পর্যটকদের ঢুকতে দিচ্ছে অভয়ারণ্য কর্তৃপক্ষ।