তৃণমূলের আনা অনাস্থা প্রস্তাবের বিরুদ্ধে এবার কলকাতা হাইকোর্টে মামলা দায়ের করলেন বিধাননগরের মেয়র সব্যসাচী দত্ত। তাঁর বিরুদ্ধে আনা অনাস্থা প্রস্তাবের বৈধতাকেই চ্যালেঞ্জ করলেন সব্যসাচী। আগামী ১৫ তারিখ মামলার শুনানি হতে পারে। 

সব্যসাচী দত্ত নিজে থেকে বিধাননগরের মেয়র পদ না ছাড়া তাঁর বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব আনেন তৃণমূল কাউন্সিলররা। শুক্রবার প্রথমে কলকাতা হাইকোর্টে গিয়ে আইনজীবীদের সঙ্গে পরামর্শ করেন সব্যসাচী দত্ত। কিছুক্ষণের মধ্যেই দায়ের করেন মামলা। 

আরও পড়ুন - প্রশান্ত কিশোরকে কোটি কোটি টাকা কীভাবে দিচ্ছে তৃণমূল, প্রশ্ন সব্যসাচীর, দেখুন ভিডিও

হলফনামায় মূলত তিনটি অভিযোগ তুলেছেন সব্যসাচী। প্রথমত তাঁর অভিযোগ, ২৭ জুন থেকে ছুটিতে রয়েছেন বিধাননগর পুরসভার কমিশনার। ৯ জুলাই আনা অনাস্থা প্রস্তাবে তিনি কীভাবে সই করলেন। 

দ্বিতীয় সব্যসাচীর অভিযোগ, ৯ জন বাদে বাকি সব কাউন্সিলরকে ভয় দেখিয়ে অনাস্থা প্রস্তাবে সই করানো হয়েছে। অনেকের সই জাল করা হয়েছে বলেও অভিযোগ করেছেন বিধাননগরের মেয়র। প্রসঙ্গত, সব্যসাচীর বিরুদ্ধে আনা অনাস্থা প্রস্তাবে মোট ৩৫ জন তৃণমূল কাউন্সিলর সই করেছিলেন। 

সবশেষে সব্যসাচীর অভিযোগ, তিনি রাজারহাট, গোপালপুর এলাকায় বেআইনি নির্মাণের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ করাতেই তাঁর বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব এনে মেয়র পদ থেকে সরানোর চেষ্টা হচ্ছে। রাজারহাট- গোপালপু এলাকায় বেশি প্রভাব রয়েছে সব্যসাচীর বিরোধী গোষ্ঠীর নেতা এবং বিধাননগরের ডেপুটি মেয়র তাপস চট্টোপাধ্যায়ের। 

আগামী ১৮ জুলাই সব্যসাচী দত্তের বিরুদ্ধে আনা অনাস্থা প্রস্তাবের উপরে ভোটাভুটি হবে। তার আগেই এই মামলার শুনানি শুরু হওয়ার কথা। শুক্রবার ফিরহাদ হাকিম সব্যসাচীকে কটাক্ষ করে বলায়, অবিলম্বে পদত্যাগ করা উচিত বিধাননগরের মেয়রের। আবার মুকুল রায় সব্যসাচী প্রসঙ্গে বলেছেন, ক্ষমতা থাকলে সব্যসাচীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়ে দেখান মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।