মাঝের হাট ব্রিজ চালু করা ছাড়পত্র দিল ভারতীয় রেলওয়ের সেফটি কমিশন। শুক্রবার পূর্ব রেলের পক্ষ থেকে এই কথা জানানো হয়েছে। পূর্ব রেল সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইটে জানিয়েছে,   রাজ্যের কাছ থেকে পাওয়া নথি পাঠানো হয়েছে কমিশন অফ রেলওয়ে সেফটির কাছে। সেখান থেকেই মিলেছে চূড়ান্ত ছাড়পত্র। সম্ভবত ডিসেম্বর মাসের প্রথম সপ্তাহে এই ব্রিজ যান চলাচলের জন্য খুলে দেওয়া হতে পারে. ২০১৯ সালের ৪ঠা সেপ্টেম্বর এই ব্রিজটি ভেঙে গিয়েছিল। মাঝেরহাট রেল ব্রিজের কিছুটা অংশ গেছে রেল লাইনের ওপর দিয়ে। সেই অংশের নির্মাণকাজ নিয়ে রেলের সঙ্গে রাজ্য সরকারের একাধিকবার মতোবিরোধ তৈরি হয়েছে।  যা রাজ্যরাজনীতিতে রীতিমত গরম ইস্যু হিসেবে বিবেচিত হয়। 


মাঝেরহাট ব্রিজ নিয়ে বিতর্ক

মাঝের হাট ব্রিজ দ্রুত শুরু করার দাবিতে রাস্তায় নামে রাজ্য বিজেপি নেতৃত্ব। বিজেপির এই মিছিলকে ঘিরে রণক্ষেত্র হয়ে ওঠে। লাঠিচার্জ করে পুলিশ। পুলিশের লাঠিচার্জ এর কারণে মাথা ফাটে এক বিজেপি কর্মীর। তারপর নবান্ন থেকে সাংবাদিক সম্মেলন করে রাজ্য সরকার জানায় রেলের টালবাহানার কারণেই মাঝের হাট ব্রিজ নির্মাণ করতে অযথা দেরি হচ্ছে। যদিও রাজ্যের এই দাবি মানতে চায়নি রেল। তারা পাল্টা জানায় মাঝের ব্রিজ নির্মাণের ক্ষেত্রে তারা কোন টালবাহানা করেনি। বরং রাজ্যকে সব রকমের সহযোগিতা করা হয়েছে। 


মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এর অভিযোগ 

নবান্ন থেকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানান আমরা বারবার রেলের কাছে আবেদন করেছি দ্রুত রেলের অংশের ব্রিজ নির্মাণ এর ক্ষেত্রে সহযোগিতা করতে। কিন্তু সেই সব ক্ষেত্রে অযথা সময় নষ্ট করা হয়েছে বলে দাবি করেন। সঙ্গে তিনি বলেন, রেল সঠিক সময় অনুমতি দিলে নয় মাস আগেই ব্রিজ উদ্বোধন করা যেত।