অনেকদিন ধরেই নজরে এসেছিল প্রতিবেশীদের। বারবার নিষেধ করা সত্ত্বেও বন্ধ হয়নি এই ব্যবসা। অভিযোগ উঠছিল বহুদিন ধরেই। এলাকাবাসী থেকে শুরু করে সকলেই রীতিমতো বিরক্ত ছিল এলাকার মধ্যে ঘটতে থাকা এই ঘটনা নিয়ে। ফলে বারবার প্রশাসনের দ্বারস্থও হয়েছিলেন প্রতিবেশীরা। এর পর পুলিশের হাতে স্থানীয়রাই ৪ জনকে ধরে তুলে দেন।

এই ঘটনা ঘটেছে লালগোলা থানার অন্তর্গত বাহাদুরপুর অঞ্চলের রাধাবাগে পাড়ার মধ্যে। এলাকার দীপক শীল প্রতিবেশী ও প্রত্যক্ষদর্শী জানান, "এই এলাকায় মা ও ছেলে মিলে বেশ কয়েক বছর ধরেই চালাচ্ছিল মধুচক্রের ঠেক। প্রতিবেশীরা সতর্ক করেও বন্ধ করতে পারেনি এই কাজ। আমরা চাই এই ঘৃণ্য কাজ বন্ধ হোক নাহলে এই বাড়ি তালাবন্ধ করে দেওয়া হোক"। এরপরেই শেষ  পর্যন্ত শনিবার স্থানীয় মানুষজন একত্রিত হয়ে হাতেনাতে এই ব্যবসার ঠেক থেকে মূল চক্রি ওই বাড়ির মহিলা-সহ বহিরাগত আরও দুই মহিলা ও পুরুষ সমেত মোট চারজনকে ধরে পুলিশের হাতে তুলে দেয়। 

এই ঘটনায় পুরও এলাকা জুড়ে ব্যাপক চাঞ্চল্য তৈরি হয়েছে। স্থানীয় বাসিন্দারা অভিযোগ করে জানান, বহু দিন ধরেই এই বাড়িতে নানান সময়ে সন্দেহভাজন লোকজনের আনাগোনা চলত। সেই নিয়ে বাড়ির গৃহবধূকে বলা হলেও তিনি কোনও কর্ণপাত করেননি। উল্টে তিনি এলাকাবাসীদের নানান ভাবে এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন। প্রসঙ্গত এর পরেই সকলে মিলে এই দিন হাতেনাতে ওই বাড়ি থেকে চলা মধুচক্রের ঠেকে হানা দেন। সকলেই চাইছেন প্রশাসন অন্তত কঠোর ব্যবস্থা নিয়ে প্রকাশ্যে চলা লালগোলা শহরের বুকে এই কারবার দ্রুত বন্ধ করুক।