সামান্য় বকুনিতেই আত্মহত্যার সিদ্ধান্ত নিল দশ বছরের মেয়ে।  ঘটনাটি ঘটেছে ব্যান্ডেলের লালবাবা আশ্রমে । দিদির সাথে ঝগড়ার পর মায়ের বকুনিতেই এই ঘটনা ঘটেছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয়রা।

সূত্রের খবর, মৃত বালিকার নাম পূজা দাস । তার ৬মাসের বড় এক দিদিও আছে।  মা ঝরনা এবং বাবা ভরত দুজনেই দিনমজুরি করে সংসারে অন্ন জোগান। অত্যন্ত গরিব এই পরিবার । একটা খাট ঢোকার মতো তাঁদের খুপড়ি ঘর । জানা গেছে, সোমবার সকালে স্বামী-স্ত্রী দুজনেই প্রতিদিনের মতো যে যার কাজে চলে যান । বিকেলে ঝর্ণা ফিরে এলে দেখেন, বিছানাপত্র এলোমেলো , পোশাক আশাক এদিক ওদিক ছড়ানো। 

জানতে পারেন, দুই বোনের মধ্যে সকাল থেকে কোনো বিষয়ে ঝগড়া হয়েছে । পরে দুই মেয়েকে বকাবকি করে বড়ো মেয়েকে নিয়ে পাশের পুকুরে স্নান করতে যান ঝর্ণা। মায়ের বকুনি স্হ্য় করতে পারেনি পূজা। মা স্নান সেরে আসার মধ্য়েইে গলায় ওড়না দিয়ে ফাঁস দেয় গলায়। পূজার বন্ধুরাই প্রথম দেখতে পায় ঘটনাটি । তারাই ছুটে এসে পূজার মা কে খবর টা দেয় । তাঁরা এসে দেখেন তক্তার ওপরে প্লাস্টিকের চেয়ার আর কড়িকাঠে তাঁরই একটি ওড়না বেঁধে আদরের ছোটো মেয়ে ঝুলছে । 

ব্যান্ডেল পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ সের আলি জানান , পুলিশ  খবর পেয়ে যখন ঘটনাস্থলে যায় তখন অলরেডি পূজার দেহ তাঁরা নামিয়ে স্থানীয় চিকিৎসককে ডেকে এনেছেন । কিন্তু ততক্ষণে সব শেষ । মৃতদেহটি আপাতত চুচূড়া ইমামবাড়া সদর হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে ।