দিল্লি গেলেন কলকাতার প্রাক্তন মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায়। সঙ্গে গেলেন শোভনের বান্ধবী বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়ও। শোভনের দিল্লি যাত্রার সঙ্গে সঙ্গেই তাঁর বিজেপি-তে যোগদানের জল্পনা আরও জোরাল হয়েছে। যদিও, শোভনের দিল্লি যাত্রার কারণ রাজনৈতিক নাকি একান্তই ব্যক্তিগত, তা নিয়েও জল্পনা রয়েছে। 

শোভনকে দলে টানতে মরিয়া বিজেপি। অনেক দিন ধরেই শোভনের বিজেপি-তে যোগদান নিয়ে টানাপোড়েন চলছে। শোভনের বিজেপি-তে যাওয়া রুখতে সক্রিয় হয়ে উঠেছে তৃণমূলও। ইতিমধ্যেই শোভনের সঙ্গে গিয়ে দেখা করে এসেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দূত। এই পরিস্থিতিতে শোভনের দিল্লি যাত্রা জল্পনা আরও বাড়িয়ে দিয়েছে। কারণ শোনা যাচ্ছে দিল্লিতে বিজেপি-র সদর দফতরেই অন্যান্য তৃণমূল বিধায়কের মতো শোভনও বিজেপি-তে যোগদান করতে পারেন। 

আরও পড়ুন- মুকুলের পথেই কি শোভন, জোড়া কৌশলে আটকানোর চেষ্টা তৃণমূলের

এর আগেই শোনা গিয়েছিল, শোভনের সঙ্গে বিজেপি-র দুই সর্বভারতীয় নেতার গোপন বৈঠকও হয়েছে কলকাতায়। এর পরে দলের প্রায় চল্লিশজন কাউন্সিলরকে নিয়েও বৈঠক করেছেন শোভন। 

আগামী বছর কলকাতা পুরসভার নির্বাচন। শোভনকে দলে টানতে পারলে পুরভোটের আগে তৃণমূলকে আরও কঠিন চ্যালেঞ্জের মুখে ফেলতে পারবে বিজেপি। কারণ লোকসভা  ভোটের নিরিখে কলকাতার অন্তত পঞ্চাশটি ওয়ার্ডে বিজেপি  এগিয়ে রয়েছে। 

এই পরিস্থিতির মধ্যেই এ দিন দুপুরে বৈশাখীদেবীর সঙ্গে দিল্লি গিয়েছেন শোভন চট্টোপাধ্যায়। তাঁদের সঙ্গে ছিল বৈশাখীদেবীর শিশুকন্যাও।