অসুস্থ দুই শিশুকে ঝাড়ফুঁক করে সুস্থ করে দেওয়ার নাম করে আগুনে পুড়িয়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠলো এক ওঝার বিরুদ্ধে। ঘটনায় গুরুতর জখম হয়ে মৃত্য়ু হল এক শিশুর। মৃত শিশুর নাম জাহ্নবী শেখ(১০)। ঘটনায় আগুনে পুড়ে  আহত হয় তার ভাই জাহাঙ্গীর শেখ(8)। তাকে কৃষ্ণনগর জেলা হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়েছে। 

সূত্রের খবর,নাকাশিপাড়া থানার নাটনার বাসিন্দা পেশায় চাষি হলধর শেখের দুই সন্তান গত কয়েকদিন যাবৎ অসুস্থ ছিল। অভিযোগ,এক প্রতিবেশীর পরামর্শে হলধর শেখ তাঁর দুই সন্তানকে নাকাশিপাড়া থানার কাঠালবেড়িয়া এলাকায় টুকটুকি বিবি নামে এক ওঝার কাছে নিয়ে যান। অভিযোগ,ওই ওঝা হলধর শেখ ও তাঁর স্ত্রীকে জানায়, ভূতে ধরেছে তাদের সন্তানদের। সেই ভূত ছাড়িয়ে দেওয়ার নাম করে সাড়ে দশ হাজার টাকাও দাবি করে ওই ওঝা। ওঝার দাবিকে সত্যি মনে করে অন্ধ বিশ্বাসে ওঝার প্রস্তাবে রাজি হয়ে যায় ওই দম্পতি। অভিযোগ, এর পরই ভূত ছাড়ানোর জন্য  জাহ্নবী শেখ ও জাহাঙ্গীর শেখ নামে দুইর গায়ে আগুন ধরিয়ে দেয় ওই ওঝা। যা দেখে আপত্তি জানায় ওই দম্পতি।

অভিযোগ,এর পর অগ্নিদগ্ধ দুই সন্তানকে হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে আসার উদ্যোগ নিলে বকেয়া টাকার দাবি করে ওই ওঝা। বকেয়া না দিয়ে বাচ্চাদের সেখান থেকে নিয়ে গেলে ক্ষতি করারও হুমকি দেয় ওঝা।  শুক্রবার বিষয়টি জানিয়ে পুলিশের শরণাপন্ন হয় শেখ দম্পতি। এর পর নাকাশিপাড়া থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে দুই শিশুকে বেথুয়াডহরি গ্রামীন হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক জাহ্নবী শেখকে মৃত বলে ঘোষণা করে। 

অন্যদিকে আহত ভাই জাহাঙ্গীর শেখের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাকে কৃষ্ণনগর জেলা হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়েছে। ঘটনার জেরে এলাকায় ব্যাপক উত্তেজনার সৃষ্টি হয়।অভিযুক্ত ওঝা টুকটুকি বিবিকে আটক করেছে নাকাশিপাড়া থানার পুলিশ। নিজেদের ভুল বুঝতে পেরে কান্নায় ভেঙে পড়েন ওই দম্পতি। এখানও কিছু মানুষে কীভাবে কুসংস্কারে বিশ্বাস করছেন, এই মর্মান্তিক ঘটনাই তা ফের প্রমাণ করল।