বাবা পেশায় টোটো চালক। তাঁর কাছেই চোদ্দ হাজার টাকা দামের মোবাইলের আবদার করেছিল মেয়ে। সেই মোবাইল না পেয়েই গলায় দড়ি দিয়ে আত্মঘাতী হল ষোল বছরের কিশোরী।

মর্মান্তিক ঘটনাটি ঘটেছে  নদিয়ার নবদ্বীপ থানার মাজদিয়ার বেলডাঙ্গায়। মৃত ছাত্রীর নাম মৌসুমী দেবনাথ (১৬)। সে স্থানীয় মাজদিয়া পানশিলা গার্লস হাইস্কুলের একাদশ শ্রেণীতে পড়ত। 

মৌসুমীর বাবা প্রদীপ দেবনাথ পেশায় টোটো চালক। প্রদীপবাবুর তিন মেয়ের মধ্যে মৌসুমী ছিল ছোট। প্রদীপবাবু জানিয়েছেন, দিন দশ-বারো আগে মেয়ে একটি ১৪ হাজার টাকা দামের মোবাইল ফোন দাবি করেছিল। তখন বিষয়টিকে বেশি গুরুত্ব না দিলেও এ দিন ফের মৌসুমী বাবার কাছে মোবাইলের দাবি তোলে। মেয়েকের প্রদীপবাবু জানান, তাঁর টোটোর  ব্যাটারি নষ্ট হয়ে গিয়েছে। সেটি বদলানো প্রয়োজন। কয়েকদিন পর তিনি মেয়েকে মোবাইল কিনে দেওয়ার চেষ্টা করবেন বলে কথাও দেন। এর পর তিনি টোটো নিয়ে বেরিয়ে যান। প্রদীপবাবুর স্ত্রী একজন তাঁত শ্রমিক। তিনিও কিছুক্ষণ পরে বেরিয়ে যান। 

বাবা মা বেরিয়ে যাওয়ার পরেই ফাঁকা বাড়িতে গলায় দড়ি দিয়ে আত্মঘাতী হয় মৌসুমী। ফ্যান থেকে তার দেহ ঝুলতে দেখে প্রদীপ এবং তাঁর স্ত্রীকে খবর পাঠান প্রতিবেশীরা। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে আসে পুলিশ। দেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য শক্তিনগর হাসপাতালে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়। মোবাইলের জন্য মেয়ে যে এমন সিদ্ধান্ত নেবে, তা ভাবতেও পারছেন না প্রদীপবাবু এবং তাঁর স্ত্রী। মৌসুমীর মৃত্যুতে গোটা এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে।