Asianet News BanglaAsianet News Bangla

Murshidabad Crocodile- কুমীর আতঙ্কে কাঁপছে জেলা,নদী থেকে শতহস্ত দূরে গ্রামবাসীরা

কুমির আতঙ্কে কাঁপছে মুর্শিদাবাদের পুরাতন শহর জিয়াগঞ্জের বাসিন্দারা! খবর চাউর হতেই মানুষজন দূরদূরান্ত থেকে জিয়াগঞ্জ শহরের ভাগীরথীর পাড়ে এসে হাজির হন।

The student clothes will be made in the power loom in Murshidabad bpsb
Author
Kolkata, First Published Nov 4, 2021, 5:04 PM IST
  • Facebook
  • Twitter
  • Whatsapp

কুমির (Crocodile) আতঙ্ক মুর্শিদাবাদে(Murshidabad)! নদীর জলে (Bhagirathi) নামা থেকে দূরে থাকছেন বাসিন্দারা(locals)। শেষ পর্যন্ত এমন কাণ্ড যে ঘটতে পারে বাস্তব জীবনে তা এখনো যেন বিশ্বাস করে উঠতে পারছেন না আট থেকে আশি কেউ। কুমির আতঙ্কে কাঁপছে মুর্শিদাবাদের পুরাতন শহর জিয়াগঞ্জের বাসিন্দারা! খবর চাউর হতেই মানুষজন দূরদূরান্ত থেকে জিয়াগঞ্জ শহরের ভাগীরথীর পাড়ে এসে হাজির হন। 

স্থানীয়রা জানান, এই ভাগীরথী নদীতেই দেখা মিলেছে আচমকা একটি বিশাল আকার কুমিরের। আর তাতেই আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে এলাকায় । এদিকে ঘটনা জানতে পেয়েই ভাগীরথীর পাড়ে ছুটে আসেন জিয়াগঞ্জ থানা থেকে বিশাল পুলিশবাহিনী। থানার আধিকারিক নদী পাড়ের উৎসাহিত মানুষ কে অযথা কুমির টিকে বিরক্ত না করার জন্য আবেদন রাখেন । স্থানীয় সূত্রে জানা যায় প্রায় ১২-১৪ ফুটের  ওই কুমিরের  দেখা মেলে ভাগীরথীর সদর ঘাট এলাকায় ,সেখান থেকে  কুমির টি শিবতলা ঘাট ও নিমতলা ঘাট হয়ে বহরমপুরের দিকে চলে যায়। 

নদী পাড়ে জিয়াগঞ্জ আজিমগঞ্জ পুর সভা বেশ কিছু দিন আগেই হাই মাস্ট লাইট লাগিয়েছে, ওই আলো জ্বালিয়ে এদিন দিনেও কুমিরটির খোঁজ করা হয়। এদিকে ঘটনায় ভাগীরথীর স্নানের ঘাটগুলিতে অনান্য দিনের মানুষের তুলনায় আতঙ্কে আনাগোনা খুবই নগন্য। এই ব্যাপারে স্থানীয় বাসিন্দা বিপ্লব খাঁ, রেবতি দাসরা বলেন, “আমরা প্রত্যেক দিন ভাগীরথীতে স্নান করি, কিন্তু কুমিরের আতঙ্কেই এদিন আর ঘাটে যাইনি।” শেষ বার ১৯৫৮ সাল নাগাদ জিয়াগঞ্জের ভাগীরথীতে কুমিরের দেখা গিয়েছিল বলে দাবি করেছেন এলাকার প্রবীন নাগরিকরা। ফের এই কুমির উসকে দিল প্রবীণদের স্মৃতি।

The student clothes will be made in the power loom in Murshidabad bpsb

এদিকে, রীতিমতো বাধাহীনভাবে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে মুর্শিদাবাদের ঘাটে ঘাটে কুমির। রীতিমতো উৎসবের মরসুমে আতংক দেখা দিচ্ছে সব মহলে। এদিকে কুমির দেখার বিষয়টি পাঁচকান হতেই নানান উৎসুক মানুষ গঙ্গায় রীতিমতো নৌকা বিহারের বেরিয়ে পড়েছেন। কেউ কেউ আবার গঙ্গায় জাল নিয়ে নিজে থেকেই অপারদর্শী ভাবে প্রাণের ঝুঁকি নিয়ে কুমির ধরার চেষ্টা করছেন বলেও স্থানীয়রা জানাচ্ছেন। 

শেষ পাওয়া খবরে জানা যায়, ঘাটে উপস্থিত স্থানীয়দের একাংশ গঙ্গায় কুমির দেখার দাবি করেছেন। তাঁরা জানিয়েছেন, নৌকা করে মাছ ধরছিলেন মাঝিরা। সে সময়ই জালে আটকায় একটি বিশালাকার প্রাণী। পরে নৌকার উপর থেকে দেখা যায় সেটি কুমির। এদিকে বনদপ্তর আধিকারিকরা জানান, তারা কমিটিকে বিভিন্ন ঘাটে ট্র্যাক করার চেষ্টা করছেন। খুব শীঘ্রই রাতে তাকে উদ্ধার করা যায়।

Follow Us:
Download App:
  • android
  • ios