জঙ্গল থেকে নদী পেরিয়ে লোকালয়ে আতঙ্ক ছড়াল দক্ষিণ ২৪ পরগনার কুলতলিতে। করোনা আবহের মধ্য়ে নতুন করে বাঘের আতঙ্ক। গ্রাম লাগোয়া জঙ্গল থেকে বেরিয়ে বাঘ গ্রামে ঘোরাঘুরি করছে। জনবসতি এলাকায় মিলেছে বাঘের পায়ের ছাপ। পেশায় মৎসজীবী এক ব্যক্তি বাঘটিকে জঙ্গলে যেতে দেখেছেন বলে তাঁর দাবি। তারপরই, কুলতলির লাগোয়া গ্রামগুলিতে বাঘের আতঙ্কে রাত কাটাচ্ছেন গ্রামবাসীরা।

আরও পড়ুন-কৃষি আইনের সমর্থনে বিজেপি-এর মিছিলে জনজোয়ার, মুখ্যমন্ত্রীকে তুলোধনা লকেটের

কুলতলির মনিমোহন হালদার ঘেরি গ্রামে শুক্রবার সন্ধ্য়ায় কুলতলি লাগোয়া পাতাপচা খালে মাছ ধরতে গিয়েছিলেন সম্রাট বৈদ্য নামে এক মৎসজীবী। বিকেল সাড়ে পাঁচটা নাগাদ প্রায় দুশো মিটার দূরে বাঘ দেখতে পান তিনি। পাশাপাশি, খাল পেরিয়ে গ্রামের মধ্যে বাঘটি ঢুকেছিল বলে দাবি ওই মৎসজীবীর। কেননা, বাঘের পায়ের ছাপ মিলেছে ওই এলাকায়। বিষয়টি গ্রামবাসীদের মধ্যে চাউর হতেই বাঘের আতঙ্ক দেখা দেয়। বন দফতরে খবর দেওয়া হলে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন বনকর্মীরা।

আরও পড়ুন-বলেছিলেন 'মমতাকে জড়িয়ে ধরবেন', করোনা আক্রান্ত বিজেপি নেতা অনুপম হাজরা

শুক্রবার রাতে বনকর্মীরা গ্রামের বিভিন্ন এলাকায় বাঘের খোঁজে তল্লাশি শুরু করে। বাঘ গ্রামে ঢুকে মানুষের উপর হামলা চালাতে পারে এই আশঙ্কায় বনকর্মীদের সঙ্গে রাত পাহারায় দেন গ্রামবাসীরা। লাঠি হাতে নিজেদের মধ্যে সমন্বয় বজায় রেখে বাঘের খোঁজে রাতভর তল্লাশি চলে। কিন্তু শনিবার সকাল পর্যন্ত বাঘের হদিশ মেলেনি। বাঘটিকে খাঁচাবন্দি করতে জনবসতি পূর্ণ এলাকার বেশ কিছুটা অংশ জাল দিয়ে ঘিরে দেওয়া হয়েছে। বন দফতরের অনুমান, বাঘটি হেড়োভাঙার জঙ্গল থেকে বেরিয়ে পাতাপচা খাল সাঁতরে লোকালয়ে ঢুকে ছিল। বাঘের খোঁজে আপাতত কয়েকদিন রাত পাহারা দেবেন গ্রামবাসীরা।