কোথাও বুথে ঢুকতে বাধা, তো কোথাও আবার 'গ্লো ব্যাক' স্লোগান। ভোটের দিনে সকালে এলাকায় তাঁর উপস্থিতিকে ঘিরেই উত্তেজনা চরমে নদিয়ায় করিমপুরে। শেষপর্যন্ত পিপুলখোলায় একটি বুথে সামনে আক্রান্ত হলেন বিজেপি প্রার্থী জয়প্রকাশ মজুমদার। দলের রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের প্রতিক্রিয়া, 'হারবে বুঝেই করিমপুরে বিজেপি প্রার্থীর উপর হামলা চালিয়েছে তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীরা।' 

খড়গপুর ও কালিয়াগঞ্জে এখনও পর্যন্ত উপনির্বাচন শান্তিপূর্ণই বলা চলে। তবে সোমবার সকাল থেকে উত্তপ্ত নদিয়ার করিমপুর। নিশানায় বিজেপি প্রার্থী জয়প্রকাশ মজুমদার।  সকালে থানারপাড়া এলাকায় একটি বুথে তাঁকে তৃণমূল কংগ্রেস কর্মীরা ঢুকতে বাধা দেয় বলে অভিযোগ। শাসকদলের কর্মীদের সঙ্গে বচসায় জড়িয়ে পড়েন করিমপুরের বিজেপি প্রার্থী। কেন্দ্রীয় বাহিনীর মধ্যস্থতায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে। করিমপুরে সাহেবপাড়ায় একটি বুথে আবার জয়প্রকাশ মজুমদার পৌঁছতেই 'গো ব্যাক' স্লোগান দিতে শুরু করেন তৃণমূল কংগ্রেসের স্থানীয় কর্মী-সমর্থকরা।  তবে বড়সড় বিক্ষোভের ঘটনা ঘটল করিমপুরের পিপুলখোলা এলাকার ঘিয়াঘাটা ইসলামপুর প্রাথমিক স্কুলের বুথে।

সকাল থেকেই ভোটগ্রহণকে কেন্দ্র করে করিমপুরের পিপুলখোলায় উত্তেজনা ছিলই।  বিজেপি প্রার্থী জয়প্রকাশ মজুমদার যখন ঘিয়াঘাটার ইসলামপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বুথে পৌঁছান, তখন তাঁকে ঘিরে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন স্থানীয় তৃণমূল কর্মী-সমর্থকরা।  পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ঘটনাস্থলে পৌঁছায় পুলিশ ও কেন্দ্রীয় বাহিনী। এরইমধ্যে জয়প্রকাশের উপর তৃণমূল কর্মীদের চড়াও হন বলে অভিযোগ।  স্রেফ কিল-চড়-ঘুষিই নয়, বুথের বাইরে রীতিমতো লাথি মেরে করিমপুরের বিজেপি প্রার্থীকে রাস্তার পাশে  ঝোপে ফেলে দেওয়া হয়।  ঘটনার রিপোর্ট তলব করেছে নির্বাচন কমিশন।

সোমবার সকাল থেকে খড়গপুরে ঘাঁটি গেড়েছেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি ও মেদিনীপুরের সাংসদ দিলীপ ঘোষ। রেলশহরে ওয়াররুম খুলে ভোটগ্রহণ প্রক্রিয়ার উপর নজর রাখছেন তিনি। করিমপুরে দলের প্রার্থীর উপর হামলার ঘটনায় কী প্রতিক্রিয়া বিজেপির রাজ্য সভাপতির? দিলীপ ঘোষ বলেন,  'করিমপুর ওরা হারছে, সকাল থেকে জয়প্রকাশ মজুমদারকে নানাভাবে হেনস্থা করা হচ্ছে। তাঁকে ধাক্কা মেরে, লাঠি মেরে জঙ্গলে ফেলে দেওয়া হয়েছে। কোথায় সংবিধান, কোথায় গণতন্ত্র, কোথায় পুলিশ! এই ভোটকে কেন্দ্র করে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের আসল রূপ বেরিয়ে এল।' এর আগে সকালে ভোটে অশান্তি করলে যোগ্য জবাব দেওয়া হবে বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছিলেন তিনি।