বিধানসভা উপনির্বাচনে দলের পালে ফের হাওয়া লেগেছে। এবার বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিং-এর গড়ে থাবা বসাল তৃণমূল।  আস্থা ভোটে জিতে ফের ভাটপাড়া পুরসভার দখল নিল রাজ্যের শাসকদলই। বেআইনিভাবে আস্থা ভোট করানোর অভিযোগ তুলে ভোটাভুটিতে অংশ নেননি বিজেপি কাউন্সিলররা।

উত্তর ২৪ পরগণার ভাটপাড়া পুরসভার ছিল তৃণমূলের দখলে। চেয়ারম্যান ছিলেন দলের দাপুটে নেতা অর্জুন সিং। কিন্তু লোকসভা ভোটে টিকিট না পেয়ে বিজেপিতে যোগ দেন তিনি। বারাকপুর থেকে সাংসদও নির্বাচিত হন তিনি। শুধু তাই নয়, ভোটের ফল বেরোনোর পর গেরুয়াশিবিরে নাম লেখান পুরসভার ২৯ জন তৃণমূল কাউন্সিলরও। ভাটপাড়া পুরসভার পালাবদল ঘটে গত বছরের জুন মাসে। আস্থা ভোটে জিতে বোর্ড গঠন করে বিজেপি।  নয়া বোর্ডের চেয়ারম্যান সাংসদ অর্জুন সিং-এর ভাইপো।  সাত মাস পর ফের পুরসভার দখল নিল তৃণমূল। 

গত নভেম্বর মাসে বিজেপি ছেড়ে পুরনো দলেই ফেরেন ভাটপাড়া পুরসভার ১২ জন তৃণমূল কাউন্সিলর। কলকাতায় সাংবাদিক সম্মেলন করে তাঁদের দলের ফেরার কথা ঘোষণা খোদ পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম। ফলে সংখ্যার বিচারে ভাটপাড়া পুরসভার ১৭টি আসন চলে যায় রাজ্যের শাসকদলের দখলে। কারণ লোকসভা ভোটের পর পাঁচ কাউন্সিলর তৃণমূলেই থেকে গিয়েছিলেন।  বৃহস্পতিবার আস্থা ভোটে বিজেপিকে ১৯-০ ব্যবধানে হারিয়ে ফের ভাটপাড়া পুরসভার ক্ষমতায় ফিরল তৃণমূল কংগ্রেসই। ভোটাভুটিতে বিজেপি-এর কোনও কাউন্সিলরই যোগ দেননি।

উল্লেখ্য, ১২ জন কাউন্সিলর হারানোর পরেও কিন্তু খাতায়-কলমে ভাটপাড়া পুরসভায় ১৭টি আসন এখনও বিজেপি-এর দখলে আছে। কিন্তু ঘটনা হল, লোকসভা ভোটের আগে কাউন্সিলর পদ থেকে ইস্তফা দিয়েছেন  অর্জুন সিং।  সেই আসনে এখনও ভোট হয়নি। আর তৃণমূল থেকে যে ২৯ জন কাউন্সিলর বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন, তাঁদের মধ্যে একজন মারা গিয়েছেন।  আরও একজন বিজেপি কাউন্সিলর জেলে। সেক্ষেত্রে আস্থা ভোটে দলের হয়ে ভোট দিতে পারতেন ১৪ কাউন্সিলর।