রাজ্যপাল- শাসক দল সংঘাত এবার সংসদে গড়াতে চলেছে। জগদীপ ধনখড় রাজ্য সমান্তরাল প্রশাসন চালাচ্ছেন, এই অভিযোগেই সংসদে অভিযোগ আনতে চলেছে রাজ্যের শাসক দল।তৃণমূল কংগ্রেস যখন রাজ্যপালের অতিসক্রিয়তার বিরুদ্ধে সংসদে সরব হওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছে, তারই মধ্যে আবারও রাজ্য সরকারকে বিঁধে লক্ষ্মণরেখার কথা মনে করিয়ে দিলেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়। 

এ দিন কলকাতায় একটি অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখতে গিয়ে রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড় ফের একবার মনে করিয়ে দেন, সংবিধান তাঁকে যে দায়িত্ব দিয়েছে, সেটা তিনি পালন করবেনই। চুপ করে বসে থাকতে পারবেন না। কারও নাম না করেই রাজ্যপাল বলেন, 'আমি যা বলি, তার সবকিছুরই রাজনৈতিক মানে করা হয়। সংবিধানে উল্লিখিত নির্দিষ্ট প্রক্রিয়ার মধ্যে দিয়েই আমি এখানে এসেছি। আমি কী করব না করব, সেটা সংবিধানে স্পষ্টভাবে লেখা আছে। রাজ্যপাল হিসেবে যেটা উচিত সেটা করব, যেটা করা উচিত নয় সেটা করব না। কারওরই লক্ষ্মণরেখা পার করা উচিত নয়।' অন্য একটি অনুষ্ঠানে আবার তিনি মন্তব্য করেন, টমুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে তো অনেক মন্ত্রী আছেন, কিন্তু বাংলায় তো আমি একা।'

রাজ্যপালের ইঙ্গিত যে সরাসরি রাজ্য সরকার এবং রাজ্যের শাসক দলের দিকে, তা বলার অপেক্ষা রাখে না। কারণ রাজ্যের মন্ত্রীরাও প্রকাশ্যে অভিযোগ করছেন, নিজের এক্তিয়ারের বাইরে গিয়ে কাজ করছেন রাজ্যপাল। শুক্রবারও রাজ্যের স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য একই অভিযোগ করেছিলেন। 

রাজ্যপালের বিরুদ্ধে এবার সংসদেও সরব হতে চলেছে তৃণমূল। সংসদের শীতকালীন অধিবেশন শুরু হওয়ার আগে এ দিন দিল্লিতে সর্বদলীয় বৈঠক ডেকেছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। সেখানেই রাজ্যপালের অতিসক্রিয়তার প্রসঙ্গটি তোলেন তৃণমূল সাংসদ সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি অভিযোগ করেন, বাংলায় সমান্তরাল সরকার চালানোর চেষ্টা করছেন জগদীপ ধনখড়। বিষয়টি নিয়ে যে শীতকালীন অধিবেশনে তৃণমূল সরব হবে তা বুঝিয়ে দিয়ে অন্যান্য বিরোধী দলগুলিরও সমর্থন চান তৃণমূল সাংসদ। রাজ্যের শাসক দলের এই পদক্ষেপ থেকে স্পষ্ট, এবার দিল্লিতে সরব হয়ে জগদীপ ধনখড়ের উপরে চাপ বাড়াতে চাইছে তারা।