সন্দেশখালির ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই এবার ব্যারাকপুরে রাজনৈতিক হিংসার বলি দুই। সোমবার রাতে ব্যারাকপুরের জগদ্দল থানা এলাকায় দুই তৃণমূল সমর্থককে নৃশংসভাবে খুনের অভিযোগ উঠল বিজেপি-র বিরুদ্ধে। 

অভিযোগ, জগদ্দলের বারুইপাড়া এলাকায় সোমবার রাতে বেশ কয়েকজন তৃণমূল কর্মীর উপরে হামলা চালানো হয়। ধারালো অস্ত্রের আঘাতে এক তৃণমূল সমর্থকের ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয়। পরে হাসপাতালে আরও একজনের মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ। আশঙ্কাজনক অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি আরও এক সমর্থক। এই ঘটনায় অর্জুন সিংহের বাহিনীর দিকেই অভিযোগের আঙুল তুলেছে তৃণমূল। 

এই ঘটনায় এখনও বিজেপি-র পক্ষ থেকে এখনও কোনও প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি। স্থানীয় বিজেপি সমর্থকদের একাংশের অবশ্য দাবি, নিজেদের আনা বোমা ফেটেই মৃত্যু হয়েছে ওই তৃণমূল সমর্থকদের। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাতেই এলাকায় বিশাল পুলিশ বাহিনী নামানো হয়েছে। 

আহতদের প্রথমে ভাটপাড়া স্টেট জেনারেল হাসপাতাল এবং পরে কল্যাণী জেএনএম হাসপাতালে পাঠানো হয়। আজ এলাকায় যেতে পারেন জেলা তৃণমূলের নেতৃত্ব।

ভোটের আগে থেকেই উত্তপ্ত হয়ে রয়েছে ভাটপাড়া। ব্যারাকপুর থেকে অর্জুন সিংহ এবং ভাটপাড়া উপনির্বাচনে অর্জুনের ছেলে পবন সিংহ জেতার পরেও হিংসায় লাগাম পড়েনি। ভাটপাড়া, জগদ্দল, নৈহাটি এলাকায় তৃণমূল এতটাই কোণঠাসা হয়ে পড়ে যে ঘরছাড়া দলীয় সমর্থকদের ঘরে ফেরাতে নৈহাটি যান দলনেত্রী এবং মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিজে। তার পরে কিছুদিন এলাকা শান্ত থাকলেও ফের রাজনৈতিক হিংস ফিরল জগদ্দলে।