আশিষ মণ্ডল, বীরভূম:  মুখ্যমন্ত্রী নয়, এবার নিশানায় প্রধান। সোশ্যাল মিডিয়ায় মোদী সম্পর্কে আপত্তিকর ছবি শেয়ার করার অভিযোগে দু'জনকে গ্রেফতার করল পুলিশ। ধৃতকে ১৪ দিন জেল হেফাজতে রাখার নির্দেশ দিয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে বীরভূমের রামপুরহাটে।

আরও পড়ুন: সাহস দিলেন সারা বাংলাকে, ৭২-র নিঃসঙ্গ বৃদ্ধ বিয়ে করলেন হাঁটুর বয়সী মহিলাকে

অভিযুক্তের নাম মহম্মদ সনু। বাড়ি, রামপুরহাট শহরের ভাঁড়শালা মোড় এলাকায়। পেশায় তিনি ব্যবসায়ী। সোমবার দুপুরে নিজের ফেসবুকে প্রোফাইলে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর একটি ছবি শেয়ার করেন সনু। ছবিতে দেখানো হয়েছে, একটি লাঠির উপর অত্যন্ত অশালীনভাবে বসে রয়েছেন মোদী। আর লাঠিটি ধরে রয়েছেন এক মহিলা। শুধু তাই নয়, ওই লাঠিটির উপর আবার লেখা, 'ভারতের জাতীয় পতাকা'!  ফেসবুকে ছবিটি ছড়িয়ে পড়তে সময় লাগেনি। পোস্টটি নজরে পড়ার পর রামপুরহাট থানার অভিযোগ দায়ের করেন অপর্ণ নাগ নামে স্থানীয় এক যুবক। অভিযোগ পেয়ে তৎপর হয় পুলিশ। মূল অভিযুক্ত মহম্মদ সনু-সহ দু'জনকে গ্রেফতার করা হয়। ধৃতদের ১৮ দিন পুলিশি হেফাজতের নির্দেশ দিয়েছেন রামপুরহাট মহকুমা আদালতের অতিরিক্ত মুখ্য দায়রা বিচারক সিদ্ধার্থ শঙ্কর রায়চৌধুরী।

আরও পড়ুন: করোনার কোপ, কৌশিকী অমাবস্যায় বন্ধ নকশা গ্রামের প্রাচীন কালী মন্দির

অভিযোগকারী অপর্ণ নাগ বলেন,  'ছবিতে প্রধানমন্ত্রীকে যেভাবে অপমান করা হয়েছে এবং জাতীয় পতাকা সম্পর্কে যে কুরুচির পরিচয় দেওয়া হয়েছে তাতে আমি মর্মাহত।  ভারতবাসী হিসাবে আমি লজ্জিত। সেই কারনে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার আবেদন জানিয়ে থানায় অভিযোগ দায়ের করেছি। পুলিশ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ায় খুশি।' উল্লেখ্য, মাস খানেক আগে মুখ্যমন্ত্রী মমতা সম্পর্কে সোশ্যাল মিডিয়ায় কুরুচিকর মন্তব্য করেছিলেন হুগলির হিন্দমোটরের এক যুবক। তৃণমূল কংগ্রেসের তরফে থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়। অভিযুক্তকে গ্রেফতার করে পুলিশ।ে