শাশুড়ি বউমার চুলোচুলির কথা শোনাই যায়। কিন্তু প্রকৃত অর্থ তা ঠিক কতখানি ভয়ঙ্কর হতে পারে, তা এখন একটি ভাইরাল ভিডিও দেখে টের পাচ্ছেন ঘাটাল শহরের বাসিন্দারা। রাস্তার উপরে একটি পরিবারের শাশুড়ি এবং বউমার মারামারির ভিডিও দেখে আঁতকে উঠছেন প্রত্যেকেই। 

ঘটনাটি ঘটেছে পশ্চিম মেদিনীপুরের ঘাটাল মহকুমার খড়ার পৌরসভার ৭ নং ওয়ার্ডে। ভাইরাল হওয়া ভিডিও-তে দেখা যাচ্ছে কখনও দুই মহিলার মধ্যে রীতিমতো রাস্তার উপরে মারামারি চলছে। সর্বশক্তি দিয়ে তাঁরা পরস্পরকে আক্রমণ করছেন। চুলের মুঠি ধরে টানা থেকে এলোপাথাড়ি চড়, থাপ্পড়, বাদ নেই কিছুই। সম্পর্কে ওই দু' জনই শাশুড়ি এবং বউমা। মারামারিতে জড়িয়ে পড়া শাশুড়ির নাম লক্ষ্মী নন্দী এবং তাঁর বউমার নাম শ্রাবণী নন্দী। 

ভিডিও-তে দেখা যাচ্ছে, বেশ কিছুক্ষণ ধরে দুই মহিলার মধ্যে মারামারি চলছে। তাঁদের ছাড়ানো দূরে থাক, উল্টে দুই মহিলাকেই মার মার করে উৎসাহ দিচ্ছেন দুই ব্যক্তি। পরে জানা যায় তাঁরা ওই দুই মহিলার স্বামী। লক্ষ্মীদেবীর স্বামী অরুণ নন্দী বউমাকে সবক শেখানোর জন্য স্ত্রীকে উৎসাহিত করছিলেন। আর তার পাল্টা শ্রাবণীদেবীর স্বামী সন্দীপ নিজের মাকে উত্তম মধ্যম দেওয়ার জন্য স্ত্রীকে উৎসাহ দিচ্ছিলেন। এমন কী, নিজের মাকে মারার জন্য স্ত্রীর হাতে লোহার রড ধরিয়ে দিতেও দেখা গিয়েছে শ্রাবণীদেবীর স্বামী  সন্দীপকে। 

প্রতিবেশীরা জানিয়েছেন, নন্দী পরিবারে শাশুড়ি এবং বউমার মধ্যে নিত্যদিন অশান্তি লেগে থাকে। তাতে তাঁরাও অতিষ্ট। কয়েকদিন আগে সেই বিবাদই হাতাহাতিতে গড়ায়। প্রতিবেশীদের কয়েকজনই সেই ভিডিও তুলে ভাইরাল করেন। শেষ পর্যন্ত কয়েকজন মহিলা এসে শাশুড়ি এবং বউমাকে নিরস্ত করেন।

শ্রাবণীদেবীর অভিযোগ, শাশুড়ি তাঁকে নিয়মিত গালিগালাজ করেন। তা সহ্যের সীমা ছাড়ানোতেই হাতাহাতির সূত্রপাত। পাল্টা শাশুড়ি লক্ষ্মীদেবীর অভিযোগ, ছেলের মাথা খাচ্ছে বউমাই!