শোক নয়, শতায়ুর মৃত্যুতে আনন্দে মাতলো মৃতের পরিজন থেকে গ্রামবাসী।  বিয়ে বাড়ির বাজনা বাজিয়ে বিদায় জানানো হল বৃদ্ধকে। দেখলে বোঝাই যাবে না গ্রামে কেউ গত হয়েছেন। সোমবার রাতে নিজের গ্রামের বাড়িতেই মারা যান ১০৭বছর বয়সী সুবল মণ্ডল। চন্দ্রকোনা ১ নম্বর ব্লকের শ্যামখুরি গ্রামে বাসিন্দা । 

মৃতের পরিজনের দাবি,  ১৯১২ সালে চন্দ্রকোনার এই গ্রামেই জন্ম নেন সুবল মন্ডল। কৃষক পরিবারেই তাঁর বেড়ে ওঠা। আর সেই সুবলের মৃত্যুতে বাজলো বাজনা।  আশেপাশের গ্রাম তো দূর অস্ত ১০৭ বছরের জীবদ্দশার উদাহরণ জেলাতেও খুব কমই আছে। তাই দাদুর মৃত্যুতে শোকগ্রস্ত না হয়ে উৎসবের পরিবেশ গোটা গ্রাম জুড়ে। 

এলাকাবাসীরা জানান, সারাটা জীবন যে গ্রামের মানুষ পাশে থেকেছে , শব যাত্রাতেও  বাজনা নিয়ে তারাই সামিল হয়েছে এদিন। মৃতের নাতি কৈশিক মণ্ডল বলেন,আমার দাদু পরাধীন দেশে জন্মে ছিল। দাদুর কাছে গল্প শুনেছি, সে পরাধীনতা দেখেছে। তারপর দেশ স্বাধীন হয়েছে। সেই দাদুর মৃত্যুতে কি কাঁদা যায়। তাই দাদুকে হাসিমুখে বাজনা বাজিয়ে বোম ফাটিয়ে বিদায় দিলাম। 

আর গ্রামের মোড়ল কাজল রায় বলেন,সুবল কাকু আদের গ্রামের গর্ব। তাই ওনার মৃত্যুতে মৃতদেহ ফুল দিয়ে সাজিয়ে গোটা গ্রামের মানুষ একত্রিত হয়ে মৃতদেহ গ্রাম  ঘুরিয়ে  গ্রামের শ্মশানে  দাহ করেছি।  এসবই আনন্দের না শোকের তা নিয়ে বিতর্ক থাকতেই পারে, তবে তাতে আমল দিতে নারাজ শ্যামখুরী গ্রামের মানুষজন।