সোমবার রাতের ঝড়বষ্টিতে কিছুটা স্বস্তি পেয়েছিলেন কলকাতা-সহ দক্ষিণবঙ্গের বিভিন্ন জেলায়। সোমবারের পরে মঙ্গলবারও গোটা দক্ষিণবঙ্গ জুড়ে একইভাবে বজ্রবিদ্যুৎ- সহ বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে বলে পূর্বাভাস দিল হাওয়া অফিস। মঙ্গলবার বিকেলের পরে বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। তবে স্বস্তির সঙ্গে অস্বস্তির খবরও থাকছে. আবহবিদদের পূর্বাভাস, দিনের বেলা আর্দ্রতাজনিত অস্বস্তিতে ভুগতেই হবে মানুষকে। 

আবহাওয়া দফতর জানিয়েছে, বৃষ্টির সঙ্গেই বেশ কয়েকটি জেলায় ঝোড়ো হাওয়া বইতে পারে। সোমবার রাতেও একইভাবে কলকাতা-সহ লাগোয়া এলাকাগুলিতে কালবৈশাখী আছড়ে পড়ে। ঝড়ের সর্বোচ্চ গতিবেগ ছিল ঘণ্টায় সাতান্ন কিলোমিটার। কলকাতার আগেই অবশ্য পশ্চিম মেদিনীপুর, বীরভূম, মুর্শিদাবাদ, নদিয়ার মতো জেলায় প্রবল ঝড়বৃষ্টি হয়। 

আবহাওয়া দফতর থেকে জানানো হয়েছে, বিহারের উপরে অবস্থান করা ঘূর্ণাবর্তের জেরেই এ রাজ্যে গরম হাওয়া সেভাবে ঢুকছে না। যার ফলে টানা এক সপ্তাহেরও বেশি তীব্র গরমে হাঁসফাঁস করার পরে বীরভূম, বাঁকুড়া, পুরুলিয়ার মতো জেলাগুলিতে গত দু' দিন তাপমাত্রা কিছুটা কমেছে। মঙ্গলবারও সকাল থেকে কলকাতায় রোদের তাপ বেশ কিছুটা কম রয়েছে। আর্দ্রতা বজায় থাকলেও চড়া রোদের দাপট থেকে কিছুটা মুক্তি পেয়েছেন শহরবাসী। ঝড়বৃষ্টির জেরে মঙ্গলবার কলকাতার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা স্বাভাবিকের তিন ডিগ্রি নীচে নেমে যায়। কলকাতাতে মঙ্গলবার সর্বোচ্চ তাপমাত্রা থাকতে পারে ৩৬ ডিগ্রি সেলসিয়াসের আশেপাশে।

আলিপুর আবহাওয়া দফতর গত সপ্তাহের শেষ দিকেই অবশ্য এমন পূর্বাভাস দিয়েছিল। আবহবিদরা জানিয়েছিলেন, সোম থেকে বুধবারের মধ্যে ঝড়বৃষ্টির অনুকূল পরিস্থিতি তৈরি হতে পারে। সপ্তাহের শুরুতেই সোমবার সেই পূর্বাভাস মিলে গিয়েছে। বঙ্গবাসীর এখন প্রার্থনা, বাকি দু' দিনও মিলে যাক আবহবিদদের পূর্বাভাস, তাতে সাময়িক এই স্বস্তি কিছুটা দীর্ঘায়িত হবে।