আর কতদিন অপেক্ষা করবেন! ভিনরাজ্য থেকে পরিযায়ী শ্রমিকদের ফেরানোর দাবিতে এবার পথ অবরোধ করলেন মহিলারা। অবরোধ তুলতে গিয়ে বিক্ষোভে মুখে পড়েন পুলিশকর্মীরাও। উত্তেজনা ছড়াল বীরভূমের ময়ুরেশ্বরের কুনুটিয়া গ্রামে। আটক করা হয়েছে বেশ কয়েকজনকে।

আরও পড়ুন:কলকাতায় করোনায় আরও এক সিআইএসএফ অফিসারের মৃত্যু,চিন্তা বাড়ছে বাহিনীতে

কেউ দিল্লি, তো কেউ আবার মুম্বই, চেন্নাই-রাজস্থান-বেঙ্গালুরুতেও কাজ করেন অনেকেই। ময়ুরেশ্বরের কল্লেশ্বর পঞ্চায়েতের কুনুটিয়া গ্রামে পরিযায়ী শ্রমিকের সংখ্যা প্রায় হাজার দেড়েক। স্থানীয় সূত্রের খবর, বছরভর কাজের সুবাদে বাইরে থাকতে হয় পরিবারের পুরুষ সদস্যদের। স্রেফ উৎসবের সময়ে বাড়ি ফেরেন তিনি। কিন্তু এবার কি আর ফিরতে পারবেন? লকডাউনে অনিশ্চয়তা বাড়ছে। প্রায় দেড় মাস হয়ে গেল, ভিনরাজ্যে আটকে রয়েছেন সকলেই। আর তাতেই ধৈর্য্যের বাঁধ ভাঙল পরিবারের মহিলাদের। 

আরও পড়ুন: দিল্লি থেকে অটো-ওলা-উবার করে হরিশ্চন্দ্রপুরে পরিযায়ী শ্রমিকরা, আতঙ্কে তটস্থ মানুষ

আরও পড়ুন: লকডাউনে জেরে বাড়ি ফিরতে না পারার হতাশা, কেরলে আত্মঘাতী বাংলার পরিযায়ী শ্রমিক

মঙ্গলবার দুপুরে পরিযায়ী শ্রমিকদের ফিরিয়ে আনার দাবিতে রামপুরহাট থেকে কল্লেশ্বর  যাওয়ার রাস্তা অবরোধ করেন গ্রামের মহিলারা। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছয় পুলিশ। অবরোধ তুলতে গেলে, ঝাঁটা, লাঠি নিয়ে পুলিশকর্মীদের দিকে তেড়ে যান বিক্ষোভকারীরা। ভেঙে দেওয়া হয় পুলিশের গাড়ির কাঁচও।  শেষপর্যন্ত সার্কেল ইন্সপেক্টরের নেতৃত্ব বিশাল পুলিশবাহিনী গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এরপর এলাকায় শুরু হয় পুলিশি ধরপাকড়। বেশ কয়েকজনকে আটক করারও খবর পাওয়া দিয়েছে।

পেটের দায়ে ভিনরাজ্যে কাজ করতে যেতে হয় তাঁদের। লকডাউনের জেরে সবচেয়ে বেশি দুর্ভোগে পড়েছেন এ রাজ্যের পরিযায়ী শ্রমিকেরাই। কাজকর্ম বন্ধ, রোজগার নেই। বাধ্য হয়ে বাড়ি ফিরতে চাইছেন সকলেই। পরিস্থিতি এমনই যে, হাঁটাপথে ফিরতেও পিছুপা হচ্ছেন না অনেকেই।