বিয়ে হল একটি সামাজিক বন্ধন যাতে দুটি মানুষ পরস্পর পরস্পরের প্রতি দায়বদ্ধ থাকে। বাংলার আগামী মাস অগ্রহায়ণ মাস। অগ্রহায়ণ বাংলা সনের অষ্টম এবং শকাব্দের নবম মাস। প্রাচীন বাংলা ভাষায় এই মাসটিকে আঘন নামে চিহ্নিত করা হত। বিভিন্ন দেশে সংস্কৃতিভেদে বিবাহের সংজ্ঞার তারতম্য থাকলেও সাধারণ ভাবে বিবাহ এমন একটি রীতি যার মাধ্যমে দু'জন মানুষের মধ্যে সম্পর্ক ও সামাজিক স্বীকৃতি লাভ করে। বাঙালি ব্রাহ্মণ সমাজে পাঁচটি শাখা রয়েছে রাঢ়ী, বারেন্দ্র, বৈদিক, সপ্তশতী ও মধ্যশ্রেণী। বাঙালি কায়স্থ সমাজে রয়েছে চারটি শাখা উত্তর রাঢ়ী, দক্ষিণ রাঢ়ী, বারেন্দ্র ও বঙ্গজ। এই সকল বর্ণ এবং তাদের শাখা ও উপশাখাগুলির মধ্যে বিবাহ প্রথায় দুটি বিভাগ দেখা যায়, তা হল বৈদিক ও লৌকিক। 

আরও পড়ুন- নতুন বছরে সম্পত্তি প্রাপ্তি ও সম্পদ বৃদ্ধির যোগ রয়েছে এই রাশিগুলির

লৌকিক প্রথাগুলি মেয়েলি আচার। এই কারণে এগুলি ‘স্ত্রী আচার’নামে পরিচিত। বৈদিক আচারে সাম, যজুঃ ও ঋক্ বেদত্রয়ের অনুসরণকারী ব্রাহ্মণদের মধ্যে বিবাহ প্রথায় আবার সামান্য পার্থক্য দেখা যায়। এছাড়া পালিত হয় অরুন্ধতী নক্ষত্র দর্শন, ধ্রুব নক্ষত্র দর্শন, শিলারোহণ ইত্যাদি কয়েকটি বৈদিক প্রথাও। বৈদিক প্রথাগুলি বিধিবদ্ধ শাস্ত্রীয় প্রথা ও বিবাহের মূল অঙ্গ। জ্যোতিষশাস্ত্র মতে, জন্মছকে কোনও গ্রহের কুপ্রভাবের ফলে সমস্যা দেখা দেয় বিবাহিত জীবনে। 

আরও পড়ুন- অগ্রহায়ণ মাস কেমন প্রভাব ফেলবে কুম্ভ রাশির উপর

আপনার জন্মছকে যদি কোনও অশুভ গ্রহ চতুর্থ বা অষ্টম ঘরে অবস্থান করে তবে সে ক্ষেত্রে আপনার সঙ্গীর দুর্ঘটনায় আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে।

জাতিক বা জাতিকার নবম ঘরে বা মঙ্গলের ঘরে যদি শুক্র অবস্থান করে, পাশাপাশি যদি এই ঘর মঙ্গল দ্বারা প্রভাবিত হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে তবে আপনার সঙ্গী নিষ্ঠুর প্রকৃতি হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে।

জাতিক বা জাতিকার শুক্রের অষ্টমে যদি রুষ্ট গ্রহের অবস্থান হয়। পাশাপাশি শুক্র যদি শনির সঙ্গে সংযুক্ত অবস্থায় থাকে এবং , তা হলে আপনার জীবন সঙ্গীর অস্বাভাবিক মৃত্যুর সম্ভাবনা বেশি থাকে।

জাতিক বা জাতিকার শুক্র যদি শনি দ্বারা দৃষ্ট হয় এবং চর রাশিতে অবস্থান করে তাহলে আপনার সঙ্গী হতে পারে সমাজ বহির্ভূত।

জাতিক বা জাতিকার নবম ঘরে বা মঙ্গলের ঘরে যদি শুক্র অবস্থান করে, পাশাপাশি যদি শুক্রের ঘর নীচুস্থ হলে আপনার সঙ্গী নীচু বর্ণের হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে।