অশুভ সংখ্যা হিসেবে শুধু এদেশে নয়, সারা বিশ্বে পরিচিত ১৩ সংখ্যাটি। এই সংখ্যা নিয়ে মানুষের মনে এতটাই ভীতি যে অনেক ক্ষেত্রে  গাড়ী বা বাড়ির প্লট সংখ্যা ১৩ থাকলে বাড়ি করতে রাজি হন না অনেকেই। একইভাবে গাড়ির ক্ষেত্রেও তাই। এমনকি মোবাইল নম্বরের শেষে ১৩ সংখ্যা থাকলেও সেই নম্বর নিতে চান না গ্রহকেরা। 

আরও পড়ুন- প্রচুর কর্মী নিয়োগ, মাধ্য়মিক পাশ হলেই পাবেন ষাট হাজারের বেশি মাইনে

জানলে অবাক হবেন, কানাডার ওন্টারিওতে ১৩নং জাতীয় সড়ক বলে কিছু নেই। এর কারন ১৩ নম্বরকে কানাডিয়ানরা দুর্ভাগ্যের প্রতীক বলে মনে করেন। যদিও এর কোনও সুনির্দিষ্ট কারণ পাওয়া যায় না। বহুদিন ধরে প্রচলিত কুসংস্কারের ফলে মানুষের মনে ১৩ সংখ্যাটি অশুভ হিসেবে পরিণত হয়েছে। তাই আনলাকি থার্টিন বা ফ্রাইডে দ্য থার্টিন-এর মত মিথগুলোও বিশ্বাসের ফলে প্রচলিত সত্যতে পরিনত হয়েছে।

আরও পড়ুন- শেষপাতে মিষ্টি খাওয়ার অভ্যাস, জানেন এটি স্বাস্থ্যের পক্ষে ভালো না ক্ষতিকর

শুধু কানাডাতে নয়, পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে বিভিন্ন ধর্মে এই সংখ্য়াটি অশুভ বলেই পরিচিত। কিন্তু, ১৩ সংখ্যাটি কে সংখ্যাতত্ত্ববিদরা কিন্তু মোটেও অশুভ বলেনি। উল্টে তাঁদের মতে ভারতীয় সংখ্যাতত্ত্ব ১৩ কে একটি মহাজাগতিক সংখ্যা বলে গণ্য করে। যে কোনও মাসের ১৩ তারিখকে তন্ত্র ও অন্যান্য হিন্দু ধারা পবিত্র বলে মনে করে। এই দিনগুলোতে বিশেষ পুজো-পাঠের নিয়ম বা রীতির উল্লেখ শাস্ত্রে রয়েছে। হিন্দু পঞ্জিকা অনুসারে ত্রয়োদশী দিনটি শিবের দিন হিসেবে মনে করা হয় বা উৎসর্গ করা হয়। এই কারণেই মাঘ মাসের ১৩ তারিখেই মহাশিবরাত্রি উদযাপিত হয়। এদিন হিন্দু ঐতিহ্যের পবিত্র দিনগুলোর মধ্যে অন্যতম একটি দিন।