দীপাবলির ১৫ দিন আগে পুজো করুন মা লক্ষ্মীর, পরিবারে কারোর কখনও হবে না অর্থাভাব

| Oct 20 2022, 08:39 PM IST

দীপাবলির ১৫ দিন আগে পুজো করুন মা লক্ষ্মীর, পরিবারে কারোর কখনও হবে না অর্থাভাব
দীপাবলির ১৫ দিন আগে পুজো করুন মা লক্ষ্মীর, পরিবারে কারোর কখনও হবে না অর্থাভাব
Share this Article
  • FB
  • TW
  • Linkdin
  • Email

সংক্ষিপ্ত

আশ্বিন মাসের পূর্ণিমা তিথিতে কোজাগরী ব্রত পালন করা হয়। হিন্দু ধর্মে এই দিনটিকে কোজাগর ব্রত হিসাবে বিবেচনা করা হয়। একে কৌমুদী ব্রতও বলা হয়। এই দিনে শ্রীকৃষ্ণ মহারাস রচনা করেছিলেন। এই রাতে চাঁদের রশ্মি থেকে অমৃত পড়ে বলে বিশ্বাস করা হয়। 

হিন্দু ধর্মে আলোর উৎসব দীপাবলির একটি বিশেষ তাৎপর্য রয়েছে। যার জন্য মানুষ সারা বছর অপেক্ষা করে। এবার দীপাবলি পালিত হবে ২৪ অক্টোবর। এই দিনে দেবী লক্ষ্মীর পূজা করা হয় পদ্ধতিগতভাবে, কিন্তু আপনি কি জানেন যে দীপাবলির ১৫ দিন আগে, দেবী লক্ষ্মীর উত্সবও পালিত হয়। পুজোও হয় সেদিন। এই দিনটিকে শারদ পূর্ণিমা বা কোজাগরী বলা হয়। এবার শারদ পূর্ণিমা পালিত হচ্ছে ৯ অক্টোবর ২০২২ তারিখে।

শস্য সম্পদের দেবী বলে ভাদ্র সংক্রান্তি, পৌষ সংক্রান্তি ও চৈত্র সংক্রান্তিতে এবং আশ্বিন পূর্ণিমা ও দীপাবলীতে লক্ষ্মীর পুজো হয়। লক্ষণীয় বিষয় হল-খারিফ শস্য ও রবি শস্য ঠিক যে সময় হয় ঠিক সেই সময় বাঙালি হিন্দু মেতে ওঠে লক্ষ্মীর আরাধনায়। তবে পুজোর উপাচারে পরিবর্তন হয় মাস ভেদে। মাটির মূর্তিতে প্রাণ প্রতিষ্ঠা করে পালন করা হয় কোজাগরী লক্ষ্মীপুজো। তবে মাটির মূর্তি ছাড়াও আরও নানানভাবে সম্পন্ন হয় এই কোজাগরী লক্ষ্মীপুজো।

Subscribe to get breaking news alerts

শারদ পূর্ণিমা/কোজাগরী উপবাস পদ্ধতি
আশ্বিন মাসের পূর্ণিমা তিথিতে কোজাগরী ব্রত পালন করা হয়। হিন্দু ধর্মে এই দিনটিকে কোজাগর ব্রত হিসাবে বিবেচনা করা হয়। একে কৌমুদী ব্রতও বলা হয়। এই দিনে শ্রীকৃষ্ণ মহারাস রচনা করেছিলেন। এই রাতে চাঁদের রশ্মি থেকে অমৃত পড়ে বলে বিশ্বাস করা হয়। এই দিনে পিতল, রৌপ্য, তামা বা সোনার তৈরি দেবী লক্ষ্মীর মূর্তিকে কাপড় দিয়ে ঢেকে বিভিন্নভাবে পূজা করতে হবে।

এরপর রাতে চাঁদ উঠলে ১১টি ঘির প্রদীপ জ্বালিয়ে দুধের তৈরি খির একটি পাত্রে রেখে চাঁদনী রাতে রাখতে হবে। কিছুক্ষণ পরে, চাঁদের আলোতে রাখা খির দেবী লক্ষ্মীকে নিবেদন করতে হবে এবং প্রসাদ হিসাবে ব্রাহ্মণদের দান করতে হবে। পরদিন মাতা লক্ষ্মীর পূজা করে উপবাস ভাঙতে হবে।

রাত জাগরণ

আশ্বিন মাসের শুক্লপক্ষের পূর্ণিমাকে বলা হয় শারদীয় পূর্ণিমা। শারদ পূর্ণিমার দিনে লক্ষ্মী দেবীকে প্রসন্ন করতে রাতভর ভজন-কীর্তন করা হয়। বিশ্বাস করা হয় যে এই রাতে দেবরাজ স্বয়ং পৃথিবীতে নেমে দেখেন কে জেগে ভজন করছে।

মা লক্ষ্মীর চরণ
শারদীয় পূর্ণিমার দিনে যে ব্যক্তি সারারাত জেগে থেকে নিয়ম করে দেবী লক্ষ্মীর আরাধনা করেন, তিনি মা লক্ষ্মীর বিশেষ আশীর্বাদ পান। এই দিনে লোকেরা দেবী লক্ষ্মীর প্রবেশের জন্য বাড়ির দরজা থেকে পূজার স্থান পর্যন্ত পায়ের পাতা তৈরি করে। এই দিনে ক্ষীর তৈরির প্রথাও রয়েছে।

ক্ষীর নিবেদন
রাতের বেলায় দেবী লক্ষ্মীকে বিশেষ ক্ষীর নিবেদন করা হয়। বিশ্বাস করা হয় এই দিনে চাঁদের আলোয় ক্ষীরে অমৃতের ফোঁটা পড়ে। তাই বেশির ভাগ মানুষ রাতে চাঁদের আলোয় গরুর দুধ থেকে তৈরি ক্ষীর রাখেন এবং সকালে প্রসাদ হিসেবে খান। 

আরও পড়ুন- দুর্গাপুজা ও তার পরবর্তী সময় এই ৫ রাশির জন্য খুব চাপের হতে পারে, দেখে কোন রাশি আছে এই

আরও পড়ুন- দুর্গাপুজোর সময় থেকে বাকি বছরটা এই ৪ রাশির জন্য অত্যন্ত শুভ, জেনে নিন কারা আছেন 

আরও পড়ুন- এই বছর মা দুর্গার আগমণ হবে 'হাতিতে' চড়ে, জেনে নিন মায়ের প্রতিটি বাহনের গুরুত্ব

Read more Articles on
null