জ্যোতিষশাস্ত্র মতে, জাতক বা জাতিকার জন্ম মাস তাঁর ব্যক্তিত্ব বা ভাগ্য় নির্ধারণে সাহায্য করে। একইভাবে কোনও ব্যক্তির আচরণ এবং তাঁর চরিত্রের বৈশিষ্ট্য নির্ভর করে সেই ব্যক্তির জন্ম সময়, কাল বা জন্ম মাসের উপর। জাতকের ভাগ্য সম্পর্কে অনেক কিছুই বলে দেওয়া সম্ভব তাঁর জন্ম, জন্মবার এবং জন্মমাস থেকে। জ্যোতিষশাস্ত্র অনুযায়ী, ভাদ্র থেকে চৈত্র মাসে জন্ম হলে, জেনে নিন ভাদ্র থেকে চৈত্র মাসে জন্ম জাতক বা জাতিকার ব্যক্তিত্ব সম্বর্কে।

ভাদ্র মাস: এই মাসে যাদের জন্ম তাঁরা কোনও অবস্থাতেই অমর্যাদাপূর্ণ কাজ করে না। এরা অসুস্থ হলেও খুব তাড়াতাড়ি সুস্থ হয়ে ওঠে।

আরও পড়ুন- ঋণ থেকে সহজেই মুক্তি পান, জেনে নিন কিছু নিয়ম

আশ্বিন মাস: এই মাসে যারা জন্মায় তারা সারাজীবন কোনও না কোনও রোগে ভোগে। এরা এদের কাজ গোপন রাখতেই বেশি পছন্দ করে। এরা নিজেদের চেয়ে কম সামাজিক মর্যাদা সম্পন্ন মানুষদের সঙ্গে মেলামেশা করতে বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করে।

কার্তিক মাস: এই মাসে যাদের জন্ম তারা সব সময় বিচার বিবেচনা করে তবে কথা বলে। এরা শিল্প রুচিসম্পন্ন, আলাপী, ভদ্র, বিনয়ী স্বভাবের হয়ে থাকে।

আরও পড়ুন- কনিষ্ঠায় রুপোর আংটি, বদলে দিতে পারে আপনার জীবন

অগ্রহায়ণ মাস: এই মাসে জন্ম হলে জাতক বা জাতিকা হয় খুবই ভদ্র স্বভাবের হয়ে থাকে, অথবা সে অপরাধমূলক কাজের সঙ্গে যুক্ত থাকে। এই মাসে জন্ম হলে সেই জাতকদের গির্জায় পাদ্রি করা হত না। 

পৌষ মাস: এই মাসে যাদের জন্ম তারা জনসাধারণের মধ্যে থেকে কাজ করা পছন্দ করে। আবার জনসাধারণ থেকে অপমানিতও হয়।

মাঘ মাস: যাদের জন্ম এই মাসে তাদের জীবন অতি কষ্টের মধ্যে দিয়ে কাটে। জীবনে প্রতিষ্ঠিত হতে অতে হাড় ভাঙা খাটুনি খাটতে হয়। তবে এদের মানসিকতা উদার প্রকৃতির। অপরকে বিপদে সাহায্য করতে এরা দুবার ভাবে না। 

ফাল্গুন মাস: এই মাসে যাদের জন্ম, তারা কিছুটা খামখেয়ালী স্বভাবের হয়। মনে করা হয়, এই মাসে আধ্যাত্মিক মহাপুরুষের জন্ম হয় বেশি হয়।

চৈত্র মাস: এই মাসে যাদের জন্ম তারা দীর্ঘ ও সুঠাম দেহী, লম্বা ও চিন্তাশীল হয়। এরা জীবনের প্রতি মুহূর্তে চিন্তা ভাবনা করে কাজ করেন এবং সিদ্ধান্ত নেন।