বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অক্টোবরেই পা রাখছেন ভারতের মাটিতে। এদিন বাংলাদেশের বিদেশ মন্ত্রক সূত্রে তাঁর ভারতে আসার খবর নিশ্চিত করা হয়েছে। বাংলাদেশের বিদেশমন্ত্রী একে আবদুল মোমেন জানিয়েছেন,ভারত এবং বাংলাদেশের মধ্যেকার নদিগুলির জল বন্টনের-এর মতো কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ দ্বিপাক্ষিক বিষয় নিয়ে আলোচনা উঠে আসবে। 

গত ডিসেম্বর মাসে তৃতীয়বারের জন্য প্রধানমন্ত্রী সিংহাসনে বসার পরে এটাই তাঁর প্রথম ভারত সফর। প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফরের বিষয়ে নিয়ে প্রস্তুতি নিতে চলতি মাসের ২০-২১ তারিখে দু'দিনের জন্য ঢাকা সফরে যাচ্ছেন ভারতের পররাষ্ট্র বিষয়ক মন্ত্রী এস জয়শঙ্কর। 

'গণতন্ত্রের জন্য কালো দিন', কাশ্মীর নিয়ে কেন্দ্রের সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে বিরোধীরা

কাশ্মীর পুনর্গঠন প্রস্তাব বিলে উত্তাল সংসদ, সংবিধানের কপি ছিঁড়ে হল প্রতিবাদ

এবারের হাসিনার ভারত সফরে একাধিক আঞ্চলিক এবং আন্তর্জাতিক বিষয়ে দ্বিপাক্ষিক আলোচনা করা হবে বলে জানা গিয়েছে। প্রসঙ্গত গত তিন বছরে এই দুই প্রতিবেশী রাষ্ট্রের মধ্যে ৬৮-টি চুক্তি সাক্ষরিত হয়েছে। আর গত দশ বছরের মধ্যে প্রায় ১০০-টিরও বেশি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে। তবে তিস্তা জলবন্টন চুক্তির এখনও কোনও সমাধান না হওয়ায় বাংলাদেশের বিরোধীতার সম্মুখীন হয়েছেন তিনি। তবে দ্বিপাক্ষিক আলোচনার মাধ্যমে একদিন এই সমস্যার সমাধান হবে বলেই আশা রয়েছে দুই দেশের।