আবরার ফাহাদ খুনের ঘটনায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে আরও এক অভিযুক্তকে।  অন্যদিকে, বুয়েট বিশ্ববিদ্যালয়ে আন্দোলনরত পড়ুয়াদের দাবি মেনে উপাচার্য তাদের সঙ্গে বৈঠকও করেন। উপাচার্য আন্দোলনরত পড়ুয়াদের ১০ দফা দাবির অধিকাংশ মেনে নেওয়ার আশ্বাস দেন। উপাচার্যের অবস্থানের প্রশংসা করেছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তারপরেও আন্দোলনরত পড়ুয়ারা তাদের অবস্থান থেকে সরতে অস্বীকার করেছে। এক বিবৃতিতে পড়ুয়ারা জানিয়েছে, তারা আন্দোলন বন্ধ করবে না। আগামী ১৩ ও ১৪ তারিখ তারা আন্দোলন শিথিল করবে, যাতে পড়ুয়ারা বুয়েটে ভর্তির পরীক্ষা দিতে পারে। 

আন্দোলনকারী পড়ুয়াদের এক প্রতিনিধি সাংবাদিকদের বলেন, ' ১৩ ও ১৪ তারিখ ভর্তির পরীক্ষার জন্য আন্দোলন শিথিলের সিদ্ধান্ত নিয়েছি আমরা। বুয়েটে ভর্তিতে ইচ্ছুক  ১২ হাজার পরীক্ষার্থী ও অভিভাবককে এই সময় সর্বোচ্চ সহায়তা দেওয়া হবে।'  সোমবার থেকে  পড়ুয়ারা প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে বিক্ষোভ দেখাচ্ছিলেন। তবে শুক্রবার উপাচার্যের সঙ্গে বৈঠকের পর উলটো সুরে কথা বলে পড়ুয়ারা। তবে নিজেদের অবস্থান থেকে শুক্রবারও একচুল নড়েনি তারা। আন্দোলনরত পড়ুয়াদের প্রতিনিধি সাংবাদিকদের বলেন, 'প্রধানমন্ত্রী, বিচার বিভাগ, আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে ধন্যবাদ জানাই। ঠিকঠাক বিচার চলছে। অভিযুক্তরা গ্রেপ্তার হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ওপর আস্থা আছে।' উপাচার্যের প্রসঙ্গে পড়ুয়ারা বলেন, ' আমাদের দাবির বাস্তবায়ন শুরু হয়েছে দেখে আমরা আশ্বস্ত হয়েছি। উপাচার্য  সেই বিশ্বাস ভেঙে দেবেন না বলে আমরা আশা করছি। '

আবরার ফাহাদ খুনের মামলায় অন্য এক অভিযুক্ত বুয়েট ছাত্র মোয়াজ আবু হুরাইরাকে গ্রেপ্তার করেছে বাংলাদেশের পুলিশ। শনিবার সকাল ১১টার দিকে ঢাকার উত্তরায় ১৪ নম্বর সেক্টর এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয় বলে ঢাকা মহামনগর পুলিশের উপ-কমিশনার মহম্মদ মাসুদুর রহমান জানিয়েছেন।