পরিচালকঃ সুমন ঘোষ

তারকাঃ সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়, যিশু সেনগুপ্ত, অপর্না সেন, কৌশিক সেন, ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত, শাস্বত চট্টোপাধ্যায়, লিলি চক্রবর্তী, পরাণ বন্দ্যোপাধ্যায়, সুদিপ্তা চক্রবর্তী প্রমুখ।

গল্পঃ বসু পরিবার সাবেকিয়ানায় মোড়া এক জমিদার পরিবারের গল্প। এক সময় যে পরিবারের দাপট ছিল সমাজে, আজ সে একান্নবর্তী পরিবার ভেঙে হারিয়েছে সকল আভিজাত্য। । উত্তরসূরীদের বিদেশে পারিদেওয়ায় একাকিত্বের ছাপ পরেছে বাড়ির আনাচে কানাচে। এমনই অবস্থায় মা-বাবার ৫০তম বিবাহ বার্ষিকিতে বাড়ি ফেরা সকলের। আর তারপরই প্রিয়জনের কাছে পেয়ে কীভাবে বদলাতে থাকে সম্পর্কের সমীকরণ, তারই গল্প বলে বসু পরিবার।

অভিনয়ঃ পরিবারের কর্তা প্রণব বসু ও তার স্ত্রী মঞ্জুরী বসুর ভুমিকায় সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায় ও অপর্না সেন অনবদ্য। ছবিতে টুগলুর ভূমিকায় শাস্বত চট্টোপাধ্যায় এক গুরুত্বপূর্ণ অংশ নেয় গল্পের মোড় বদলাতে, তাই তার অভিনয়ের দাপট ছিল আর সকলের থেকে অনেক অংশে বেশি ধারালো। যিশু সেনগুপ্ত ও ঋতুপর্ণা সেনগুপ্তর অভিনয় ছবিটিকে আর একধাপ এগিয়ে নিয়ে যায়, তবে অভিনয়ের দিক থেকে দর্শকের বিশেষ পাওনা কৌশিক সেন ও সুদীপ্তা চক্রবর্তী জুটি। এত অভিনেতা অভিনেত্রীর ভিরে বসু পরিবার জুড়ে নিজেদের এক আলাদা পরিচিত তৈরি করেছে এই দুই তারকা। ছবিতে পরাণ বন্দ্যোপাধ্যায়কে পাওয়া খুব অল্প সময়ের জন্য, তবে সেই উপস্থিতিতেই দর্শক মনে জায়গা করেছেন তিনি।

চিত্রনাট্যঃ বসু পরিবার-এ আয়োজন আড়ম্বরের অভাব না হলেও দুর্বল চিত্রনাট্যের কারনে খামতি থেকে গেল পরিবার-এ। একদিনের গল্পে মজুত ছিল সব রসদ, সেট, কাস্ট, আয়োজনের অভাব ঘটেনি কোনও অংশে, তবুও অযথা বাড়ানো সংলাপ, একই সিকয়েন্স বেশিক্ষণ ধরে রাখায় মনসংযোগ হারায় দর্শক।

সিনেমাটোগ্রাফিঃ শটে ছিল না কোনও বিশেষ আকর্ষন, বরং মাস্টার ফ্রেমেই শ্যুট হয়েছে অধিকাংশ সময়। শটের টেকে বৈচিত্রের অভাব, এক কথায় গতানুগতিক শটেই কাজ সারার মতন অবস্থায় দাঁড়িয়ে বসু পরিবার। অধিকাংশ সময়ই বাড়ির চার দেওয়ালের মধ্যে চরিত্ররা বন্দি থাকার কারণেও কিছুটা বেগ পেয়েছিল এই ছবির দৃশ্যায়ন।

অপর্না-সৌমিত্র রসায়নঃ ১৮ বছর পর পর্দায় ফেরা এই জুটির। বসু পরিবার থেকে দর্শকের এক বড় প্রাপ্তী ছিল অপর্না সেন ও সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায় রসায়ন। পর্দায় অনেকটা সময় পাওয়া গেল এই জুটিকে। বদলেছে অভিনয়ের ধাঁচ, তবুও বদল ঘটেনি স্ক্রিন প্রেজেন্স-এর। দুইয়ের মুখেই সংলাপের মার প্যাঁচে সম্পর্কের বিশ্লেষণ কোথাও যেন জানান দিয়ে যায়, মধ্যে পার হয়ে আসা অনেকটা পথের ক্লান্তি।

পরিচালনাঃ অনবদ্য বাস্তবমুখী গল্প বসু পরিবার-কে নিয়ে পরিচালক সুমন ঘোষ হয়তো একটু অন্যভাবে পরিকল্পনা করতে পারতেন। সাবেকিয়ানা, বনেদি পরিবার, এগুলো এখন দর্শকের মনে অনায়াসে জায়গা করে নেওয়ার বিষয়। কিন্তু বসু পরিবার পরতে পরতে মনে করিয়ে দেয় বাংলায় এই পটভূমিতে হয়ে যাওয়া অনেক ছবির কথাই। নিখুঁত ভাবে গল্পের শেষ পর্যন্ত রহস্য ধরে রেখেছিলেন পরিচালক। বসু পরিবার-এ শুরুতেই সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের গলায় পত্রপাঠ ছবিকে এক আলাদা মাত্রা দেয়।

রেটিং- ৩/৫