'আমাদের শেষ কাজ শর্বরী দি'র সঙ্গে। ভাবতেই পারছি না তুমি আর নেই।' শর্বরী দত্তের পোশাকে সেজে উঠে একটি পত্রিকার সঙ্গে শ্যুট করেছিলেন দেবলীনা। শর্বরী দত্তের সঙ্গে সেই ছিল দেবলীনা ও গৌরব চট্টোপাধ্যায়ের শেষ কাজ। একটি পত্রিকার জন্য শ্যুট করেছিলেন শর্বরী দত্তের ডিজাইনের পোশাক পরে। সেই দিনের কথা মনে করেই আবেগঘন হয়ে উঠেছেন দেবলীনা। 

আরও পড়ুনঃমনির সঙ্গে রাধিকার সম্পর্কে চিড়, এর পিছনে কর্ণই কি দায়ী, এই দূরত্ব কি মিটবে অবশেষে

প্রসঙ্গত, শর্বরী দত্তের মৃত্যু নিয়ে চারিদিক ছেয়ে গিয়েছে রহস্যে। শোকাহত গোটা টলিউড ইন্ডাস্ট্রি। এই আকস্মিক মৃত্যু যেন কেউই মেনে নিতে পারছে না। প্রখ্যাত ফ্যাশন ডিজাইনারের মৃতদেহ পাওয়া যায় বাথরুমে। কানের পাশে ক্ষত চিহ্নও ছিল। ময়না তদন্তের পর জানা যায় সেরিব্রাল অ্যাটাকেই তাঁর মৃত্যু হয়েছে। পুলিশ সূত্রে খবর, পরিবারে ছিল সম্পত্তি নিয়ে নান সমস্যা। শ্বশুড়বাড়ির তরফে একটি জমি নিয়ে ছেলের সঙ্গে তিক্ততা চলছিল তাঁর। বীরভূমের আহমেদপুরের জমিটির অংশীদার ছিলেন তিনজন। 

আরও পড়ুনঃফের একই ফ্রেমে মধুমিতা-অর্জুন, আসছে থ্রিলারে মোড়া 'দেবদাস'

আরও পড়ুনঃমনির সঙ্গে রাধিকার সম্পর্কে চিড়, এর পিছনে কর্ণই কি দায়ী, এই দূরত্ব কি মিটবে অবশেষে

শর্বরী দত্তের স্বামী আলোকময় দত্ত এবং তাঁর দুই ভাই। স্বামীর মৃত্যুর পর শর্বরী দত্তের নামেই যায় সেই সম্পত্তি। যা তিনি পরবর্তীকালে ছেলে অমলিনের নামেই করে দিয়ে যান। তবে তার আগে ছেলের সঙ্গে এই জমি নিয়ে যথেষ্ট গোলও বাঁধে। গোটা জমিটি নিতে চেয়েছিলেন অমলিন। যার জন্য প্রয়োজন ছিল শর্বরী দত্তের সই। মা সেই জমি ছেলের নামে করে দিলেও ঝামেলা চলতেই থাকে। এই নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে পুলিশের মনে।