চলচ্চিত্র জগতে পা রাখা তার তেরো বছর আগে। সেই থেকেই শুরু। তারপর আর ফিরে তাকাতে হয়নি দেবকে। আট বছরের মাথায় সাংসদ। বদল ঘটেছে অনেক। অভিনয়ের ধাঁচ থেকে শুরু করে ছবির প্লট, সময়ের সঙ্গে তাল মিলিয়ে খোকাবাবুর চ্যাম্পিয়ন হয়ে ওঠা।

এএন বাংলাঃ শ্যুটিং ফ্লোর আর ভোট, বিষয়টা সামলাচ্ছ কী করে

দেবঃ দেখ কেউ অভিযোগ করতে পারবে না। একজন সাংসদ হিসেবে, অভিনেতা, প্রযোজক হিসেবে আমি আপ্রাণ চেষ্টা করেছি নিজের সেরাটা দেওয়ার। আমি মনে করি অনেক মানুষের আশির্বাদ অনেক মানুষের ভালোবাসা যেটা অনেক কম মানুষ পায় তা আমার কাছে আছে। তাই হয়তো ব্যালেন্স করতে পারছি, নয়তো আজকের যুগে ব্যালেন্স করা সত্যি খুব সমস্যার। একদিকে যেমন অগুণতি মানুষের ভরসা, তেমনই আবার প্রযোজক সংস্থারও অনেকটা আস্থা। অনেক বড় দায়িত্ব।

এএন বাংলাঃ বাস্তবের এতটা কাছাকাছি এসেই কী কোথাও তোমার ছবির পটভূমির স্বাদ বদলাচ্ছে

দেবঃ অবশ্যই। দেখ না পর পর আমার ছবি চ্যাম্পিয়ন, কবির, ককপিট সবই একটা করে সমাজমূলক বার্তা বহন করছে। সত্যঘটনা অবলম্বণেও তৈরি হয়েছে বেশ কয়েকটি ছবি। কিডন্যাপ, পাসওয়ার্ড আসছে, তারও পটভূমিতে সমাজসচেতনাই প্রাধান্য পাচ্ছে। আমার মনে হয় এটা খুব জরুরি। আমরা যেহেতু বিনোদন জগত থেকে আসছি, আমাদের মধ্যে একটা পাওয়ার আছে ছবির মাধ্যমে বিষয়বস্তু দর্শকের সামনে তুলে ধরা। ছবি খুবই গুরুত্বপূর্ন একটা মাধ্যম। আমরা সেটাই কাজে লাগানোর চেষ্টা করছি, আমি অন্তত করছি।

এএন বাংলাঃ তোমার আগামী ছবির গল্পও সামাজিক প্রেক্ষাপটকে ঘিরে

দেবঃ হুম, একদমই তাই। তুমি ট্রেলার-এ যেমনটা দেখলে, সেখানে আমরা শুরুতে কিছু খবরের কাগজের বাছাই করা অংশ রেখেছি। কিডন্যাপ ও পাসওয়ার্ড আশা করি দর্শকের কাছে ভিন্ন মানে তৈরি করবে। মানে যেটা দেখে দর্শক বলবে দাদা এটাই তো খুজছিলাম এতো দিন।

এএন বাংলাঃ এই বিষয় সচেতনা অবলম্বন করতে কি উপদেশ দেবে তুমি

দেবঃ কিডন্যাপের (গার্ল ট্রাফিকিং) ব্যাপারে প্রথমেই বলব সচেতনতার প্রয়োজন। মানুষকে এই বিষয় সম্পর্কে শিক্ষিত করতে হবে। শিক্ষা একটা বড় ভূমিকা নেয়, মেয়েদের শিক্ষার হার বাড়াতে হবে। নূন্যতম শিক্ষা তাদের দিতেই হবে, যাতে তারা বুঝতে পারে কিভাবে এগুলো থেকে বেড়িয়ে আসা সম্ভব, বা মোকাবিলা করা সম্ভব।

এএন বাংলাঃ তবে কি চ্যালেঞ্জের এন্টারটেইনিং দেবকে দর্শক পাবে না

দেবঃ নিশ্চই পাবে। তার থেকে অনেক বেশে পাবে।

এএন বাংলাঃ রুকমিনীর অভিনয় নিয়ে কি বলবে

দেবঃ অনেক বেশি যত্নশীল হয়েছে নিজের চরিত্র নিয়ে। কাজটা মন দিয়ে করে।