দিনটা ২০ ফেব্রুয়ারি। রাত পোহালেই ২১ ফেব্রুয়ারি। ভাষা দিবস, এমনই এক দিনে একটু বেশিই বোধহয় বাংলা ভাষা নিয়ে সচেতনতা দেখিয়ে থাকেন অনেকে। তবে একটা দিনই বা কেন, বাংলার বুকে বসে প্রতি মুহূর্তে দেখতে থাকা, হারাতে বসছে ভাষার ঐতিহ্য। এই ভাষাতেই তর্জা, এই ভাষাতেই রাজনীতি-বিতর্ক-ভালাবাসা। এই ভাষারই মজ্জায় মজ্জায় লুকিয়ে রয়েছেন রবীন্দ্রনাথ। 

আরও পড়ুনঃ এগিয়ে চলছে বাংলা ছবি 'দত্তা'-র শুটিং, শরৎচন্দ্র ফিরছেন আবারও এ শহরে

একবিংশ শতাব্দীর দোরগোড়ায় এসে এই ভাষাই এখন আলোচ্য বিষয়। এমনই এক বিশেষ দিনে বাংলা ভাষাকে কেন্দ্র করেই এক রেডিও সংস্থা থেকে কবীর সুমনের কাছে উড়ে এল এক ফোন। ওপার থেকে শোনা গেল তর্জার বিষয়- 'বাংলা ভাল ভাষাও নয়, আবার ভাল-বাসাও নয়'। শোনা মাত্রই মেজাজ হারালেন কবীর সুমন। কণ্ঠে ছেড়ে প্রতিবাদ করলেন সোশ্যাল মিডিয়ার পাতায়। দীর্ঘ বক্তব্য তুলে ধরলেন একাধিক প্রসঙ্গ।

আরও পড়ুনঃ বাংলা ভাষার অধিকার প্রতিষ্ঠায় হয়েছিল আন্দোলন, ২১ ফেব্রুয়ারি বাঙালির প্রকৃত শহিদ দিবস

আরও পড়ুনঃ বিশ্বভারতীতে হিন্দিতে রবীন্দ্রসঙ্গীত গাইলেন অধ্যাপিকা, বিতর্ক তুঙ্গে শান্তিনিকেতনে
 
স্পষ্ট করে এদিন কবীর সুমন বুঝিয়ে দিলেন, কলকাতার বুকে বসে এমনই এক বিষয় নিয়ে কথা বলাই অবাক কাণ্ড। বাংলা ভাষার ঐতিহ্য যেখানে, বাংলা নিয়ে নিত্য চর্চা যেখানে , সেখানেই এমনই এক বিষয় আলোচনা হবে ২১শে-র সকালে! হুবহু প্রশ্ন তুলে ধরে জানালেন তিনি, দয়া করে এই বিষয় কিছু বলার অনুরোধ আসে, সঙ্গে ওপার থেকে যুক্ত করা হয়, অন্যান্য তারকারাও এই নিয়ে মন্তব্য করছেন, শুনেই মেজাজ হারিয়ে ফেললেন কবীর সুমন। বাকিটা দীর্ঘ পোস্টে বুঝিয়ে দিলেন তিনি।