সত্য়জিৎ রায়ের লেখা 'নকুর বাবু ও এল ডোরাডো' গল্প অবলম্বনে সন্দীপ রায় পরিচালিত 'প্রফেসর শঙ্কু ও এল ডোরাডো' বাংলা ছবিটি মুক্তি পাবে ডিসেম্বরের ২০ তারিখ। তাই  শহরের সায়েন্সসিটি অডিটোরিয়ামে, ছবির কথা বলতেই উপস্থিত ছিলেন ধৃতিমান চট্টোপাধ্য়ায়, সুভাশিষ মুখোপাধ্য়ায় ,সন্দীপ রায়, সৌমিক হালদার সহ ছবির সমস্ত কুশিলবরা। 

আরও পড়ুন, ঋতুপর্ণা ও শাশ্বত নিলেন লম্বা 'ছুটি', নতুন ছবির শুটিং-এ হারানো আবেগের খোঁজে

এই ছবির গল্পটি মূলত রোমাঞ্চ নির্ভর। যেখানে নকুর বাবু অনায়াসেই সবার মনের কথা বুঝতে পারেন। হঠাই তাঁর সঙ্গে পরিচয় হয় প্রফেসর শঙ্কু-র। তাঁর মাধ্য়মেই জানতে পারে এল ডোরাডো রহস্য়ে ঘেরা সোনার শহরকে নিয়ে। তাঁরা তারপর সেই রহস্য়ের উন্মোচনেই পাড়ি দেয় সুদূর ব্রাজিলে। এই ছবির পরিচালক সন্দীপ রায় জানালেন, এ ছবির সঙ্গে জুড়ে আছে তার অনেক স্মৃতি। অনেকদিনের সেই ইচ্ছে এবার পূরণ হল 'প্রফেসর শঙ্কু ও এল ডোরাডো' ছবিটি পরিচালনার মধ্য়ে দিয়ে। তিনি সঙ্গে এটাও জানালেন, ছোটরা এবং বড়রা উভয়েই এই ছবি দেখে আনন্দ পাবে। বিদেশেও এই ছবির শুটিং হয়েছে।  ধৃতিমান চট্টোপাধ্য়ায় জানালেন, সত্য়জিৎ রায়ের লেখা গল্প অবলম্বনে ছবিতে অভিনয় করা একটা অন্য় মাত্রা পায়।

আরও পড়ুন, এ কীসের প্রচারে নামলেন টলি কন্যা শুভশ্রী, মুহূর্তে ভাইরাল ছবি

সৌমিক হালদার জানালেন, তাঁর অন্য়তম পছন্দের গল্প 'নকুর বাবু ও এল ডোরাডো'। আর এবার সেই গল্পকে ঘিরেই সন্দীপ রায় পরিচালিত 'প্রফেসর শঙ্কু ও এল ডোরাডো' বাংলা ছবিতে সিনামাটোগ্রাফি করাটা একটা বড় ব্য়াপার। সেদিক থেকে দেখতে গেলে তিনি নিজেকে খুবই ভাগ্য়বান মনে করেন, কারণ তিনি 'চাঁদের পাহাড়' এবং 'প্রফেসর শঙ্কু ও এল ডোরাডো ' দুটি ছবিতেই  একই সঙ্গে সিনেমাটোগ্রাফি করেছেন।