গুমনামী ছবির শুভমহরৎ যেদিন হয়েছিল সেদিন থেকেই এই ছবিকে ঘিরে নানা জল্পনা শুরু হয়েগিয়েছিল বিভিন্ন মহলে। নেতাজি নাকি গুমনামী, নয়তো বা নেতাজিই গুমনামী বাবা! কোন দিকে গড়াবে গল্পের মোড়। হাজারো এক প্রশ্ন বাণ ধেঁয়ে এসেছিল সৃজিত মুখোপাধ্যায় কিংবা প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়ের -এর দিকে। কিন্তু সেগুলোকে তাঁরা চ্যালেঞ্জ হিসেবেই গ্রহণ করছেন, জানালেন খোদ ছবির অভিনেতা। 

আরও পড়ুনঃ গুমনামী বাবার সঙ্গে অরুণ জেটলির ছেলের যোগ! কী বলছে ফব

কেমন হবে তাঁর লুক, প্রথম প্রশ্নটাই তিনি করেছিলেন ছবির পরিচালককে। তখন থেকেই শুরু প্রস্তুতি। টানা ২০ দিন ধরে নানা রকমের মেকাপ করার পর অবশেষে রূপ পেলেন নেতাজি। প্রথমটাম মনে প্রশ্ন ছিল, জানালেন অভিনেতা। মানুষ প্রসেনজিৎ-কে চেনেন, মানুষ নেতাজিকে মনে প্রাণে আজও অমর করে রেখেছেন। দুইয়ের মুখ কী এক হওয়া সম্ভব! সম্ভব, অবশেষে তেমনটাই চেষ্টা করে প্রশংসিত হলেন মেকাপ শিল্পী সোমনাথ কুণ্ডু। 

আরও পড়ুনঃ ফিটনেস-এ বাজিমাত! নতুন প্রজন্মকে কড়া টক্কর দিতে এখনও প্রস্তুত প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়

ভিঞ্চি দা ছবিতে যে মেকাপ ছিল তাঁর চিত্রনাট্যের অংশ, সেই মেকাপই এবার তাঁর পরবর্তী ছবির অস্ত্র। ছবিতে মেকাপ নিয়ে প্রশংসাও করলেন প্রসেনজিৎ। তিনি জানালেন যে প্রস্থেটিক মেকাপের জেরেই এমনটা সম্ভবপর হয়েছে। 

এখানেই শেষ নয়, সঙ্গে তিনি এও জানান যে তাঁর পরিবারের সকেও এই মেকাপ দেখে জানিয়েছেন যে প্রসেনজিৎ-কে নাকি চেনাই যাচ্ছে না। সম্প্রতিই প্রকাশ্যে এসেছে ছবির ট্রেলার। তারপর থেকেই ছবিকে নিয়ে বিভিন্ন মহলে প্রশ্ন উঠছে, তবে সেদিকে কান না দিয়ে নিজের একশো শতাংশই উজার করে দিতে চান প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়।