লকডাউনে অন্যায়-অত্যাচার যেন ক্রমশ বেড়েই চলেছে। সোশ্যাল মিডিয়ার পাতা খুললেই একের পর এক নজরে চোখে পড়ছে। শিশু, থেকে মধ্যবয়সী কিংবা বয়স্করাও এই অত্যাচারের শিকার হচ্ছেন। এবার নিজের পরিবারকে নিয়ে মুখ খুললেন অভিনেত্রী মিশমি দাস। সোশ্যাল মিডিয়া পোস্টে নিজের মামার উপর সমস্ত ক্ষোভ উগরে দিয়েছেন টলিপাড়ার এই স্বনামধন্য অভিনেত্রী।

আরও পড়ুন-আর্থিক তছরুপের অভিযোগে এবার ইডির তলব রিয়া চক্রবর্তীকে, আগামীকালই দিতে হবে হাজিরা...

মিশমি জানিয়েছন দীর্ঘদিন ধরে তার মামা ও পুরো পরিবার অকথ্য অত্যাচার চালিয়ে যাচ্ছে তার দাদু ও দিদার উপর। যাদের বয়স এখন ৯০ এর কোটায় পৌঁছেছে।  দাদু ও দিদার বেশ কিছু ছবিও প্রমাণ হিসেবে তুলে ধরেছেন অভিনেত্রী। ফেসবুকে মামার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ প্রকাশ্যে আসতে না আসতেই জোর শোরগোল শুরু হয়ে গিয়েছে। দেখে নিন মিশমির পোস্টটি,

 

 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 

These people I’m writing about are my own maternal grandparents. Please give this a read and share as much as you can. This is an incident from No. 11 Kali Kumar Mukherjee Lane Shibpur, Howrah. The owner of the house, Mr. Haridas Chakraborty and his wife have been living in the house for about 75 years. They are 90 and 82 years old. . Haridas Chakraborty was a well-to-do railway employee and he got a good pension. For the last few days, they are being physically abused very brutally by his grandson Raktim Chakraborty and his son Kalyan Chakraborty, but his grandson has been beating these helpless old people the most. Since the evening of August 3, the torture has reached its climax. After being repeatedly beaten with belt, shoes and other household items Haridas Chakraborty and his disabled wife were thrown out from their home on the morning of 4th August. This is the most heinous case of brutality that one can come across, especially with old people at the age of 90. They are currently mentally broken and down and is in the protective custody of his other sons and daughters. I request you to share this post as much as possible so that people are aware of the kind of monstrous behaviour that took place with these old helpless people. Its truly a shame. I’ve attached the photos of my injured grandfather and the culprits . 11 নম্বর কালী কুমার মুখার্জী লেন শিবপুর ।হাওড়া র ঘটনা।।বাড়ির মালিক শ্রীযুক্ত হরিদাস চক্রবর্তী এবং তার স্ত্রী ওই বাড়ি তে প্রায় 75 বছর যাবৎ বাস করেন তাঁদের বয়স 90 এবং 82বছর ওই বাড়িতে আরো থাকে তাঁদের বড় ছেলে কল্যাণ চক্রবর্তী ,তার স্ত্রী সর্বানী চক্রবর্তী, ও ছেলে রক্তিম চক্রবর্তী ।হরিদাস চক্রবর্তী রেলে উছপদস্ত কর্মচারী ছিলেন এবং ভাল পেনশন পান সেই টাকা পয়সা তার ছেলে ছেলের বৌ নাতি প্রতি মাসে তার কাছে জোর করে কেড়ে নেয় না দিল আমানবিক অত্যাচার করে এভাবে দীর্ঘদিন চলে । গত কয়েকদিন যাবৎ তাঁরা শুরু করে ওই অসহায় মানুষ দুজনকে শারীরিক নির্যাতন।গত 3 আগস্ট সন্ধ্যে থেকে ওই অত্যাচার চরম আকার নেয় হরিদাস চক্রবর্তী কে আমানবিক ভাবে মারধর শুরু করে তার নাতি ছেলে এবং পুত্রবধূ। সারারাত ধরে চলে নিস্ংশ অত্যাচার সকালে 4 আগস্ট বাড়ি থেকে হরিদাস চক্রবর্তী ও তার স্ত্রী কে বাড়ি থেকে বার করে দেওয়া হয়৷ এবং তাঁকে হুমকি দেওয়া হয়৷ জানে মেরে দেওয়ার তারপর তার ছোট ছেলে

A post shared by Mishmee Das (@mishmeedas13) on Aug 4, 2020 at 11:16pm PDT

 

আরও পড়ুন-ওটিটি-র বাম্পার ধামাকা, রহস্য- রোমাঞ্চে ভরপুর বিনোদনে ঠাসা একগুচ্ছ ছবি...

অভিনেত্রী জানিয়েছেন, আজ নয়, দীর্ঘদিন যাবৎ তার দাদু ও দিদার উপর এই অত্যাচার চালিয়ে আসছে তার মামা। এমনকী মেরে ফেলারও হুমকি নাকি দিয়েছেন তার মামা। গত ৪ আগস্ট দাদু-দিদাকে বাড়ি থেকে বারও করে দিয়েছেন তারা। এবং শুধু তাই নয়, আগের দিন রাতের বেলা বেল্ট ও জুতো দিয়েও বেদম মারধর করা হয়। এইভাবেই দিনের পর দিন চলছে অত্যাচার। অভিনেত্রী আরও জানিয়েছেন, তার দাদু রেলের উচ্চপদস্থ কর্মচারী ছিলেন। পেনশনের টাকাও কেড়ে নিতেন তার গুনধর ছেলে। নোংরা ভাষাতেও গালিগালাজ করত তার মামা। নিজের সোশ্যাল হ্যান্ডেলে মামার বিরুদ্ধে এই অভিযোগই এনেছেন মিশমি। অভিনেত্রীর এই পোস্টটি প্রকাশ্যে আসার পর থেকেই বর্ষীয়ান নাগরিকদের ভাল-মন্দ থাকা নিয়েও প্রশ্ন উঠছে। তিনি সকলকে এই পোস্টটি শেয়ার করার জন্য অনুরোধ জানিয়েছেন।