করোনা আতঙ্কে গ্রাস করেছে গোটা বিশ্বকে। যত দিন যাচ্ছে তত যেন ক্রমশ বাড়ছে মৃত্যুসংখ্যা। এদিকে করোনা অন্যদিকে প্রাকৃতিক দুর্যোগ । প্রকৃতির ধ্বংসলীলায় শেষ হয়েছে মানুষের স্বাভাবিক জীবন। ঘূর্ণিঝড় আমফানের দাপটে বিধ্বস্ত সুন্দরবন। স্বাভাবিক ছন্দে কবে আবার ফিরবে তা নিয়ে সংশয় রয়েই গেছে। ফের মানবিক উদ্যোগে সামিল টলি অভিনেতা রুদ্রনীল।  টালিগঞ্জ, গল্ফগ্রীন এর পর  ত্রাণ নিয়ে পৌঁছে গেলেন সুন্দরবনে। অসহায় মানুষগুলির পাশে নিজের সাধ্যমতো উপকরণ তুলে দিলেন অভিনেতা।

করোনা আতঙ্কের মধ্যে নয়া আতঙ্কে কাঁটা হয়ে রয়েছে গ্রামবাসীরা। ঝড় চলে গেলেও তার তান্ডবলীলা এখন ধুকছে বাংলার মানুষ। মাথা গোজার ঠাঁই টুকু নেই তাদের। একটা ত্রিপলের অপেক্ষায় তাকিয়ে রয়েছে তার। পেটে খিদের জ্বালায় চোখ বন্ধ হয়ে আসছে কারোর। সেই অসহায় মানুষগুলোর পাশে নিজের বন্ধুরা মিলে একত্রিত হয়ে দাঁড়িয়েছেন রুদ্রনীল ঘোষ। মোট পাঁচটা গ্রামে প্রায় ১০০০ জন মানুষের হাতে প্রয়োজনীয় সামগ্রী তুলে দিয়েছেন রুদ্রনীল।সম্প্রতি নিজের সোশ্যালে বেশ কিছু ছবি শেয়ার করেছেন অভিনেতা। দেখে নিন ছবিগুলি।

 

 

অভিনেতা রুদ্রনীল এই মহান উদ্যোগে সামিল হয়ে ছবিই শুধু নয়, পাশাপাশি একটি ক্যাপশনও দিয়েছেন। অভিনেতা জানিয়েছেন, 'গতকাল সকাল থেকে ছিল সুন্দরবন! ফিরতে রাত হল! জলের এপার ওপার দুপারেই আমরা মোট পাঁচটা গ্রামের হাজার খানেক মানুষের কাছে পৌঁছালাম খাবার আর দরকারি জিনিসপত্র নিয়ে। পুলিশ, বিটিএস  আর লোকাল মানুষের সাহায্য মনে রাখার মত। তাঁরা ফুল দিলেন,দুপুরে খেতে দিলেন সাধ্যমত।ওদের আরও খাবার আর সাহায্য চাই সেটা বুঝলাম,কিন্তু মুখ ফুটে কেউ চাইল না কিছু। ফেসবুক, ইন্সটাগ্রাম ট্যুইটারে যারা আমার আবেদনে টাকা পাঠিয়েছেন বা অন্যান্য যে বন্ধুরা আমাদের এই কাজে অর্থ বা জিনিসপত্র দিয়ে সাহায্য করছেন তাঁদের অসংখ্য ধন্যবাদ। অন্যান্য যারাই যে কোন ভাবে মানুষের পাশে ছুটে যাচ্ছেন বা দাঁড়াচ্ছেন তাঁদের কুর্নিশ!' সুন্দরবনের মানুষগুলিও এই অসহায় অবস্থাতেও তাদের গোটা টিমকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন। ফুল দিয়ে অভ্যর্থনা জানানোর পাশাপাশি নিজেদের সাধ্যমতো মধ্যাহ্নভোজেরও আয়োজন করেছিলেন তারা। যারাই অভিনেতার এই উদ্যোগে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন সকলকেই ধন্যবাদ জানিয়েছেন অভিনেতা রুদ্রনীল।