ঋতুপর্ণ মানেই টানটান চিত্রনাট্য, সাবলীল অভিনয়। কিন্তু তিনি আজ আর নেই। শুধু রয়ে গেছে তার অভিনয় দক্ষতা, গল্পের জমাটি বুননের এক টাটকা বাতাস। সালটা ২০১৩ দিনটা ৩০ মে। আজই সেই বিশেষ দিন। কেটে গিয়েছে দীর্ঘ ৭ বছর। করোনা আতঙ্ক, লকডাউন সবই চলছে নির্বিকারে।  আর তার মাঝেই যেন মনে পড়ে গেল ভারতীয় সিনেমার উজ্জ্বল নক্ষত্র ঋতুপর্ণ ঘোষের কথা। আজকের দিনেই আচমকাই পৃথিবীকে চিরবিদায় জানিয়ে চলে গিয়েছিলেন ঋতুপর্ণ ঘোষ। অসময়ে তার মৃত্যু আজও সকলের কাছে অবিশ্বাস্য। তার অবদান আজও সকলের মনে অমলিন। 

আরও পড়ুন-নিঃশব্দেই করোনা আক্রান্তদের অর্থদান ইরফানের, ফাঁস করলেন ঘনিষ্ঠ বন্ধু...

সপ্তম মৃত্যুবার্ষিকীতে   'ঋতু ' স্মরণে বলি অভিনেত্রী সেলিনা জেটলি। প্রিয় পরিচালককে শ্রদ্ধা জানিয়ে রবীন্দ্রনাথের 'সজনি সজনি রাধিকা'তে পিয়ানোতে সুর বাঁধলেন অভিনেত্রী সেলিনা। দেশে নয়, বিদেশে বসেই  রবি ঠাকুরের বিখ্যাত গানে শ্রদ্ধা জানালেন অভিনেত্রী। শুনে নিন গানটি।

সেলিনার এই পিয়ানোর পিছনেও রয়েছে একটি ছোট্ট ইতিহাস। সেলিনার বাবা এই পিয়ানোটি সেলিনাকে উপহার দিয়েছিলেন। আজ আর তিনি নেই। তার স্মৃতি আঁকড়ে বসে রয়েছে মেয়ে সেলিনা। এছাড়া ঋতুপর্ণকে  নিয়েও সেলিনা জানান, 'ঋতু দা আমাকে এবং রামকমলকে এই ছবির জন্য আশীর্বাদ করবেন। রামকমলের হাত থেকে যখন ছবির প্রস্তাব পাই, তখন আমি মা হতে চলেছি। তবে রামকমল অপেক্ষা করেছিলেন। কিন্তু কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই ঋতু দা চলে যান। তবে রামকমল আমায় যে রোমিতার চরিত্রটি দিয়েছে, এটা একটা স্বর্গীয় অনুভূতি।' অনলাইনে সারেগামাপা চ্যাম্পিয়ন অনীক ধর পিয়ানো বাজাতে শিখিয়েছেন সেলিনাকে। তাকেও ধন্যবাদ জানাতে ভোলেননি সেলিনা। ২০১১ সালে সেলিনাকে শেষবারের মতো ছবিতে দেখা গিয়েছে। দীর্ঘদিন বাদে বড়পর্দায় ফিরছেন সেলিনা। আর এই ছবি তাকে স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে অনেকটা সাহায্য করেছে। পরিচালক রাম কমল মুখোপাধ্যায়-এর 'সিজনস গ্রিটিংস'-এ দেখা যাবে সেলিনাকে।