এ কথা বলাই বাহুল্য যে গোটা পৃথিবীর কাছেই ২০২০ ছিল একটি অভিশপ্ত বছর। এই কঠিন সময়টা  সমগ্র ইন্ডাস্ট্রির জন্য ভীষণ চ্যালেঞ্জিং। ইন্ডাস্ট্রির প্রবীণ তারকাই হোক বা নবাগত, অমিতাভ বচ্চন থেকে শুরু করে আয়ুষ্মান খুরানা সকলেই এই  মহামারীর সময়ে একসঙ্গে রুখে দাঁড়িয়েছে। সেই কারণেই ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ হিসাবে সিদ্ধান্ত নিয়েছে যে সিনেমার সেরা একবছর পরেও স্মরণ করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

আরও পড়ুন- ছোট বেলায় রঞ্জিত মল্লিকের বিশ্বাসঘাতকতা, কীভাবে দোলে ঠকাতেন তিনি কোয়েলকে, ফাঁস করলেন বং ডিভা

ফিল্মফেয়ার পুরষ্কারের 66 তম সংস্করণ ছিল অনেকটাই আনন্দ এবং দুঃখে ভরা, একদিকে যেমন ছিল দীর্ঘদিনের বন্দিদশা কাটিয়ে আনন্দ উপভোগের রাত অন্যদিকে ছিল নিজেদের সহকর্মী তথা বন্ধুদের হারানোর বেদনা। কারণ বিগত বছরে এই করোনা মহামারীর কারণেই হারাতে হয়েছে অনেক উজ্জ্বল প্রাণ। 

শীর্ষস্থানীয় বিভাগে সেরা অভিনেতা হিসাবে ঘোষিত হয় প্রয়াত অভিনেতা ইরফান খানের নাম, বিষয়টা যতখানি গর্বের ছিল ততখানিই দুঃখের ও। সেরা সমালোচক অভিনেতার পুরষ্কার পেলেন অমিতাভ বচ্চন।  জওয়ানি জনেমান ছবিতে বহু প্রশংসিত ভূমিকার জন্য আলেয়া এফ সেরা নবাগতার পুরষ্কার পান এবং সেইসঙ্গে তাপসী পান্নু (জনপ্রিয়) এবং তিলোত্তমা শোম (সমালোচক) ফিল্ম ফেয়ার সেরা অভিনেত্রীর পুরষ্কার পান এবং তাঁদের অভিনীত থাপ্পড় এবং স্যার দুটি ছবিই ছিল তৎকালীন সময়ের দুটি অত্যন্ত জনপ্রিয় সিনেমা।

আরও পড়ুন- মিমির গলায় গান, রঙির উৎসবে সাম্যের বার্তায় পরম, সেলেব দুনিয়ার শুভেচ্ছাবার্তা 

সব মিলিয়ে ফিল্মফেয়ার পুরষ্কারের 66 তম সংস্করণ   সফল্যতা ছিল নজর কাড়ার মতো এবং আমরা পরেরটির জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছি। 

নীচে ফিল্ম ফেয়ার ২০২১ এর বিজয়ী কুশলিদের বিষয়ে  বিশদে জানানো হলো:

সেরা ফিল্ম-
থাপ্পড

সেরা পরিচালক-
ওম রাউট (তানহাজি: দ্য আনসং ওয়ারিয়র)

শীর্ষস্থানীয় ভূমিকার জন্য সেরা অভিনেতা (পুরুষ)-
ইরানফান (অ্যাংগ্রিজি মিডিয়াম)

সেরা অভিনেতা (ক্রিটিকস)-
অমিতাভ বাচ্চান - গুলাবো সীতাবো

শীর্ষস্থানীয় ভূমিকাতে সেরা অভিনেতা (মহিলা)-
টেপসি পান্নু (থ্যাপপ্যাড)

সেরা অভিনেত্রী (ক্রিটিকস)-
তিলোতমা ঘর- স্যার

একটি সমর্থনমূলক ভূমিকা সেরা অভিনেতা (পুরুষ)-
সাইফ আলি খান তানহাজি: দ্য আনসং ওয়ারিয়র

একটি সমর্থনকারী অভিনেতা ভূমিকা সেরা অভিনেতা (মহিলা)-
ফারুক জাফফার- গুলাবো সীতাবো

সেরা গল্প-
আনুভা সুশীল সিনহা ও মৃন্ময়ী লাগু ওয়াকুল (থাপ্পড)

সেরা স্ক্রিনপ্লে-
রোহেনা গেরা (এসআইআর)

সেরা ডায়ালগ-
জুহি চতুরবেদী (গুলাও সিতাবো)

সেরা খেলোয়াড় ডিরেক্টর-
রাজেশ কৃষ্ণান (লটস্কে)

সেরা নবাগতা-
আলেয়া এফ (জাওয়ানি জানমান)

সেরা মিউজিক অ্যালবাম
প্রীতম- লুডো

সেরা লিরিকস-
গুলজার (ছাপপাক)

সেরা প্লেব্যাক সিঙ্গার (পুরুষ)-
রাঘব চৈতন্য- এক টুকদা ধুপ (থাপ্পড)

সেরা প্লেব্যাক সিঙ্গার (মহিলা)-
এসিস কাউর-মালাং (মালাং)

আজীবন সম্মাননা- ইরফান খান


শর্ট ফিল্ম অ্যাওয়ার্ডস

সেরা ফিল্ম-
শিবরাজ ওয়াইচাল (আরজুন)

সেরা ফিল্ম (নন-ফিকশন)-
নীতেশ রামেশ পরকুলার (বাইকায়ার্ড উইল্ডলাইফ সান্ট্যুয়ারী)

সেরা অভিনেতা (মহিলা)-
পুটি সাভারদেকার (প্রথম বিবাহ)

সেরা অভিনেতা (পুরুষ)-
আরএনএভিভি আবদাগের (আরজুন)

সেরা ফিল্ম (জনপ্রিয় পছন্দ)-
দেবী