আয়করে বৈষম্য ও জলিয়াতির একাধিক নমুনা খুঁজে পেয়েছেন আয়কর দফতরের আধিকারিকরা। বুধবার থেকে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত অভিনেত্রী তাপসী পান্নু পরিচালক অনুরাগ কাশ্যপ ও তাঁর সহযোগী বিকাশ বহালের বাড়িতে তল্লাসির পর এমনই জানাচ্ছে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক তদন্তকারী আধিকারিক। প্রায় তিনশো কোটি টাকার হিসেব বহির্ভূত সম্পত্তির হদিশ তাঁরা পেয়েছেন বলেও সূত্রের খবর। 

সূত্রের খবর ফ্যান্টম ফিল্মের সঙ্গে যুক্ত প্রায় ৩০টি এলাকায় তল্লাশি চালান হয়ছে। সংস্থার সঙ্গে জড়িত একাধিক ব্যক্তির সঙ্গেও কথা বলা হয়েছে। কিন্তু এখনও পর্যন্ত ৩০০ কোটি টাকার কোনও তাৎপর্যপূর্ণ ব্যাখ্যা তাঁরা পাননি। কর্মকর্তারা আরও জানিয়েছেন ফ্যান্টম ফিল্মের চলচ্চিত্র পরিচালক ও শেয়ারহোল্ডারদের মধ্যেশেয়ার লেনদেনে হেরাফেরি ও নিম্ম মূল্যায়নের একাধিক প্রমাণ তাঁরা পেয়েছেন।  যার আর্থিক পরিমাণ প্রায় ৩৫০ কোটি টাকা। একজন নাম করা অভিনেত্রীকে নগদে প্রায় ৫ কোটি টাকা দেওয়া হয়েছিল। এমন প্রমাণও নাকি হাতে পেয়েছেন আয়কর বিভাগের কর্মীরা। আরও তদন্ত চলবে বলেও জানান হয়েছে। 

ফ্যান্টম ফিল্মের বিরুদ্ধে কর ফাঁকার তদন্তের জন্য মুম্বই ও পুনের প্রায় ৩০টি স্থানে তল্লাশি চালান হয়েছে। একই সঙ্গে রিলায়েন্স এন্টারটেইনমেন্ট গ্রুপের সিইও শিবাশীর সরকার ও সেলিব্রিটি ট্যালেন্ট ম্যানেজমেন্ট সংস্থাগুলির সঙ্গে যুক্তদেরও তদন্তের আওতায় নিয়ে আসা হয়েছে। একই সঙ্গে ফ্যান্টম ফিল্মের কর্মীদের বাড়িতেও তল্লাশি চালান হয়েছে। কিন্তু ২০১৮ সালে সংস্থাটি বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল। 

একটি সূত্রের খবর পুনে শ্যুটি ফ্লোরেও অভিনেত্রী তাপসী পান্নু ও পরিচালক অনুরাগ কাশ্যপকে আয়কর কর্তারা দীর্ঘ সময় ধরে জেরা করেছিলেন।  এই সংস্থা থেকে ২০১৫ সালে রিলায়েন্স এন্টারটেইনমেন্ট ৫০ শতাংশ শেয়ার তুলে নিয়েছিল। তবে ২০১৮ সালে পরিচালক বিকাশ বাহলের বিরুদ্ধে যখন শ্লীলতাহানির অভিযোগ ওঠার পর থেকেই এই সংস্থাটি অধিকাংশ ক্রিয়াকলাপও বন্ধ করে দিয়েছিল। এই সংস্থা যেসব ছবিগুলি তৈরি করেছিল সেগুলি হল লোচেরা, এনএইচ ১০, কুইন, আগলি, হান্টার, বোম্বই ভেলভেট, মাসান।