মার্চ মাসের শেষের দিকে করোনা ভাইরাসে সংক্রমক হয়ে সংবাদ শিরোনামে উঠে আসেন কণিকা কাপুর। যদিও তাঁক নিয়ে শোরগোল পড়ার কারণ ছিল অন্য। নিজে সংক্রমক জেনেও বিভিন্ন অনুষ্ঠানে যাওয়া এবং একাধিক মানুষদের সঙ্গে দেখা করা জারি রেখেছিলেন কণিকা। পরবর্তীতে প্রকাশ্যে আসে তাঁর করোনা টেস্ট পজিটিভ এসেছে। সপ্তাহ দুয়েক হাসপাতালে থাকার পর দু'দিন আগেই তাঁর ষষ্ঠ টেস্ট নেগেটিভ এসেছে। অবশেষে করোনা যুদ্ধে জয়ী হলেন কণিকা। হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেয়েছেন বলিউড গায়িকা।  

আরও পড়ুনঃফের করোনার থাবা বলিউডে, হাসপাতালে ভর্তি অভিনেত্রী জো

আরও পড়ুনঃবোল্ড দৃশ্য শ্যুট করতেই ঐশ্বর্যর প্রতি দুর্বল রণবীর, ভাঙতে বসেছিল বচ্চন পরিবার

লখনউয়ের হাসপাতালে ছিলেন কণিকা। ষষ্ঠ টেস্টের পরও তাঁকে অবসার্ভেশনে রেখেছিলেন ডাক্তাররা। পরপর দুটি টেস্ট নেগেটিভ আসায় তাঁকে হাসপাতাল থেকে ছাড়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন ডাক্তাররা। প্রসঙ্গত লন্ডনে ছেলে-মেয়েদের সঙ্গে দেখা করতে গিয়েছিলেন কণিকা। লন্ডন থেকে ফেরার পরই সংক্রমক হন তিনি। করোনা ভাইরাস শরীরে নিয়ে বেআইনিভাবে নানা পদক্ষেপ নিয়ে তিনিই হয়ে উঠেছেন টক অফ দ্য কান্ট্রি। 

আরও পড়ুনঃ'এমন চেহারায় টাইট গাউন পরে কেউ চলচ্চিত্র উৎসবে আসে', বডিশেমিংয়ের তোপে ঐশ্বর্য

সেখান থেকে দেশে ফিরে বিমানবন্দরে পাওয়া নির্দেশকে বেআইনিভাবে অবমাননা করে পার্টি করে বেডা়ন তিনি। তারই মধ্যে একটি পার্টিতে উপস্থিত ছিলেন বিজোপি সাংসদ বসুন্ধরা রাজে সিন্ধিয়া ও তাঁর ছেলে দুষ্মন্ত সিং। কণিকার করোনা টেস্ট পজিটিভ আসার পর পার্টিতে উপস্থিত থাকা অনেকেই ইতিমধ্যে কোয়ারেন্টাইনে চলে গিয়েছিলেন। তাঁদের মধ্যে কারোরই শরীরে করোনা মেলেনি।

আরও পড়ুনঃসাবধান, করোনা আতঙ্কের মধ্যে এই কাজ করলেই হতে পারে জেল

আরও পড়ুনঃকী করে করোনার হাত থেকে রক্ষা করবেন আপনার বাড়ির বয়স্ক সদস্যদের, রইল তারই টিপস

আরও পড়ুনঃশরীরে কীভাবে থাবা বসায় করোনা, জানালেন বিশেষজ্ঞরা