লতাকণ্ঠী রাণুর গলায় এখন মেতে রয়েছেন সকলেই। সর্বত্রই ছড়িয়ে রয়েছে রাণুর গান। একদিন লতা মঙ্গেশকরের গান গেয়েই জীবনের মোড় ঘুরিয়েছিলেন রাণু। রানাঘাট স্টেশন চত্বরে তাঁর রোজগারের পাথেয় ছিল লতা মঙ্গেশকরের গান। তা শোনা মাত্রই তুলে ফেলতেন রাণু। গেয়ে পয়সা রোজগার করতেন সামান্য।

আরও পড়ুনঃ আবার দেখা মিলবে শ্রীদেবীর, তোলা যাবে সেলফি, সিঙ্গাপুর উড়ে গেলেন জাহ্নবী

একদিন সেই গানই যে পৌঁচ্ছে যাবে স্বয়ং লতা মঙ্গেশকরের কানে তা বোধ হয় স্বপ্নেও ভাবেননি রাণু মণ্ডল। চাচাছোলা কন্ঠস্বর, স্পষ্ট উচ্চারণ। ফলে তড়িঘড়ি তাঁকে নিয়ে গান গাওয়ালেন হিমেশ রেশমিয়া। কিন্তু খোদ লতা মঙ্গেশকর কী জানালেন রাণু প্রসঙ্গে! সম্প্রতি এক সাক্ষাত্কারে লতা মঙ্গেশকরকে প্রশ্ন করা হয় রাণু প্রসঙ্গে। তিনি স্পষ্টই উত্তর দেন, 'নকল করে বেশি দূর এগোনো যায় না, আমার, বা কিশোর দা, রফি সাহব, মুকেশ ভাইয়া বা আশার গান গেয়ে স্বল্প সময়ে নজর কাড়া যায়, কিন্তু সে সাফল্য দীর্ঘস্থায়ী হয় না'। 

কণ্ঠে নিজের অস্তিত্ব বজায় রেখেই গান গাইবার উপদেশ দিলেন লতা মঙ্গেশকর। এতে নিজের পরিচিতি গড়া অনেক সহজ হয়ে যায়। ফলে রাণুর এই সাফল্যের মেয়াদ বাড়ানোর সহজ রাস্তাই এক কথায় বাতলে দিলেন তিনি। নিজের গলায় গাইতে হবে স্বতন্ত্র গান। যা মানুষ মনে রাখবে বহুদিন। 

আরও পড়ুনঃ তৃতীয় গানেও বাজিমাত রাণুর, হিমেশ-উপেন জুটির জনপ্রিয় গান রিমেক, দেখুন ভিডিও

আজই প্রকাশ্যে এসেছে রাণুর তৃতীয় গান। উপেন প্যাটেল অভিনীত ছবিতে আশিকি মে তেরি গানটি জনপ্রিয়তা অর্জন করেছিল বিস্তর। সেই গানই আবার নতুন করে সাজিয়ে তুললেন হিমেশ রেশমিয়া। এর আগে এই গানে ছিল না কোনও মহিলা কণ্ঠ। রাণুর সঙ্গেই ক্লাব করা হল পুরোনো গান। নিজের সোশ্যাল পেজে তা শেয়ারও করলেন হিমেশ রেশমিয়া।