লকডাউনে সমস্ত বিনোদনের কাজ বন্ধ রয়েছে, একের পর এক অভিনেতা-অভিনেত্রীরা নিজেদের অর্থকষ্টের কথা তুলে ধরছেন সোশ্যাল মিডিয়ায়। মাস তিনেক হতে চলল, এখনও নেই কোনও উপার্জন। এরই মধ্যে কাজ হারালেন রাশমি দেসাই। একতা কাপুর প্রযোজিত জনপ্রিয় ধারাবাহিক নাগিনের সিজন ফোরে শলাকার ভূমিকায় অভিনয় করছিলেন তিনি। লকডাউনের মেয়াদ ক্রমশ বেড়ে যাওয়ায়, ধারাবাহিকের নির্মাতারা সিদ্ধান্ত নিয়েছেন রাশমিকে আর নাগিনে রাখবেন না।

কারণ একটাই, রাশমির জনপ্রিয়তা। টেলি তারকাদের মধ্যে রাশমির জনপ্রিয়তা এখন মারাত্মক। দিন কতক আগে তিনিই প্রথম ভারতীয় টেলি তারকা যার সঙ্গে গুগল ক্যামিও কোল্যাবোরেট করেছে। তাঁর জনপ্রিয়তা আরও বাড়ায় উৎসবে মেতে উঠেছিল ভক্তা। সেই জনপ্রিয়তাই গ্রাস করল তাঁকে। তাঁর যেহেতু পেস্কেল হাই, তাই নির্মাতারা তাঁকে ধারাবাহিকটি থেকে সরিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। লকডাউনে ক্ষতি হয়ে চলেছে বিনোদন জগতের। সেই ক্ষতিপূরণ করতে রাশমির চরিত্রটিকে আর দেখানো যাবে না বলেই জানিয়েছে এক ঘনিষ্ঠ সূত্র। মিটিং হয়ে গিয়েছে, কাস্ট এবং নির্মাতাদের। রাশমির প্রাপ্য পারিশ্রমিক দেওয়ার মত ক্ষমতা তাদের নেই, তাই রাশমিকে শো থেকে বের করে দেওয়া ছাড়া আর কোনও উপায় রইল না।

 

 

প্রসঙ্গত, সকল টেলিতারকাদের ছাপিয়ে গিয়ে গুগল ক্যামিওতে দেখা দিলেন রাশমি। তিনিই প্রথম ভারতীয় টেলিভিশন অভিনেত্রী যিনি গুগল ক্যামিওর সঙ্গে কোল্যাবোরেট করলেন। এর আগে কোন টেলি তারকাকেই এই কোল্যাবোরেশনে দেখা যায়নি। রাশমি বিষয়টি নিজের সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে প্রকাশ্যে আনেন। গুগল ক্যামিও বিষয়টি হল কোনও তারকার নাম গুগল করলে, পেজের ডান পাশে তারকার ছবি, সাধারণ তথ্যগুলি আসে। সেই তথ্যের মাঝে দেখা যায়, ছোটখাটো তারকার কিছু ভিডিও। যেখানের ভিডিওর উপর লেখা থাকে প্রশ্ন এবং ভিডিওতে উত্তর দেন তারকারা। সেই প্রশ্নগুলি আসে নেটিজেনদের কাছ থেকে।