একেই বলে টুকে পাশ। একের পর এক সাহো পোস্টার যথন প্রকাশ পেয়েছিল নেট দুনিয়ায়, তা রীতিমতন প্রশংসা কুড়িয়েছিল বিভিন্ন মহলে। কিন্তু তা মুক্তির পরই নয়া বিতর্কে জরালো সাহো। ছবির পোস্টার নাকি হুবহু টুকে ফেলা হয়েছে! নেট দুনিয়ায় ঝড় তুলে এই খবর প্রকাশ্যে নিয়ে এলেন অভিনেত্রী লিসা রয়। তাঁর মতে ছবির পোস্টারে যে ব্যাকগ্রাউন্ড ব্যবহার করা হয়েছে তা নাকি শিল্পী সিলো শিব সুলেমানের আঁকা। 

আরও পড়ুনঃ ঋতু স্মরণে 'সিজনস গ্রিটিংস' ছবির প্রথম ঝলক, প্রকাশ্যে আনলেন অমিতাভ বচ্চন

প্রকাশ্যেই সেই ছবি টুইট করলেন এই অভিনেত্রী। এই পোস্টারটি ব্যবহার করা হয়েছিল বেবি ওয়ান্ট ইউ টেল মি গানের সঙ্গে। সেখান থেকেই টুকলি করা হল সাহো ছবির পোস্টার! লিসা ছবি টুইট করে অভিযোগের সুরে লেখেন, কতদিন আর এভাবে, এতবড় নির্মাতা সংস্থা, তাঁদের কি এই ধরনের কাজ শোভা পায়! 

 

 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 

What is creativity? What is art? Where does it come from? We feel what it is not. It’s not derived from your social status. Nor your job title. Nor your appearance. Creativity and its sister Art reach us from the sweet spot of the universe- the soul you might say. But I do know that the creator- artist is the channel for it. Let me tell you how hard it is to birth anything original or authentic. I personally labored for years over my book, quelled the doubts and noise from others and didn’t emerge until I was almost undone. And when I was moving through dark spaces of self-doubt or hitting creative walls I would turn to the work that @shiloshivsuleman puts out into the world and shares on her Instagram handle for inspiration. I can recognize when a creator works honourably and deeply, bleeding, sacrificing, unsleeping, stretching herself in the direction of emotional bravery to produce work that births those feelings we all look for in day to day life. To feel inspired. To feel alive. That’s why when something dishonorable happens, we need to stand up and speak up. To hold up a mirror to these makers to make them understand THIS IS NOT RIGHT. It’s come to light that a big budget film production has ripped off one of Shilo’s original creations. This is NOT inspiration but blatant theft. In no world, is this acceptable. The production did not contact the creator, ask her permission nor offer to collaborate or offer a credit. Nothing. This is not right. I believed the Hindi film industry was evolving necessarily past stealing storylines and rampant plagiarism but the producers of Shahoo have obviously not gotten the memo when it comes to art. Here’s the thing- Creators are worthy of worship. What they produce are more lasting and precious so than all the other ‘things’ we accumulate that can be taken away. Let’s hold these producers accountable for their infuriating, dishonourable action. How would you feel if a thief slid into your home and took away your most prized possessions? Your heart. Your soul. And your livelihood. Image @dietsabya

A post shared by lisaraniray (@lisaraniray) on Aug 30, 2019 at 5:05am PDT

 

অন্যদিকে বক্স অফিসে পা রাখা মাত্রই সাহোর বাজিমাত। প্রথম দিনেই চলতি বছরের তৃতীয় বড় ওপেনিং করল এই ছবি বলিউডে। সাহোর হিন্দি ছবি শুক্রবারই ২৪ কোটি টাকা আয় করে। এর আগে ভারত ও মিশন মঙ্গল ছিল প্রথম দুয়ের তালিকা। যদিও সব ভাষা ও স্ক্রিন অনুযায়ী সাহো ইতিমধ্যেই পার করেছে প্রায় ২০০ কোটি টাকা। যদিও এই ছবি মুক্তির পর সোশ্যাল মিডিয়ায় শুব একটা সাড়া ফেলা প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি। 

আরও পড়ুনঃ রাত পোহালেই গনেশ চতুর্থী, অথচ ম্লান রইল কাপুর পরিবারের অন্দরমহল

কিন্তু দর্শকদের মনে এই ছবি বহুদিন ধরেই জায়গা করে নিয়েছিল, তা প্রথম দুদিনের বক্স অফিসের আয় দেখলেই বোঝা যায়। এখানেই শেষ নয়, সঙ্গে রজনীকান্তকেও পেছনে ফেলে দিল এই ছবি। তবে এই অবস্থায় সাহোকে ঘিরে এই নয়া জল্পনায় তা ছবির গতিকে কতটা কমাতে পারবে বলা দায়, কারণ ইতিমধ্যেই সাহো ২০০ কোটির ক্লাবে নাম লিখিয়েছে।