হাম সাত সাত হ্যা ছবির শ্যুটিং চলা কালিন ঘটেছিল এক ভয়াবহ কাণ্ড। ১৯৯৮ সালে সলমন খান, সোনালি বিন্দ্রে, সইফ আলি খান সকলের নামের সঙ্গে জড়িয়েছিল কৃষ্ণসার হরিণ হত্যা মামলা। যোধপুরে শ্যুটটিং চলাকালিন এই হরিণ শিকার করেছিলেন সলমন। তারপরই সেই কেস ওঠে আদালতে। একের পর এক শুনানির দিন পার হতে থাকে, কেসের কিনারায় পৌঁছানো এখনও সম্ভবপর হয়ে ওঠেনি। 

আরও পড়ুন- ৫০-এর গণ্ডি পেরিয়েও রোম্যান্সি কিং শাহরুখ, নিজের অ্যাপিল ধরে রাখতে ডায়েটে কী নিয়ম মেনে চলেন

নতুন বছরের শুরুতেই ডাক পড়ে সলমন খানের। দুই কৃষ্ণসার হরিণ শিকারের মমলায় ডিস্ট্রিক ও সেশন কোর্টের তরফ থেকে  শনিবার হাজিরা দেওয়ার কথা জানালেন সেই দিন নিয়ে সংশয় প্রকাশ করা হয়। জমা দেওয়া হয় একটি আবেদন পত্রও। সেই অনুযায়ী পরবর্তী দিন স্থির করা হয়েছে ৬ ফেব্রুয়ারি, শনিবার।  এদিন সলমন খানের শুনানির দিন স্থির করা হয়েছে, পাঁচ বছরের সাজা ঘোষণা হয়েছিল সলমন খানের এই কেসের জন্য। 

 

সলমন খানের উকিলের কথায়, বর্তমানে করোনা পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখেই এই দিন চেয়ে নেওয়া হয়েছে, ও আবেদন জানানো হয়েছে তা যেন পিছিয়ে দেওয়া হয়। সেই মতই আবার সমলন খান দিন পেলেন তিন সপ্তাহ পড়ে। যদিও েই কেস নিয়ে বাকি স্টারেরা বর্তমানে খানিক স্বস্তিতে রয়েছেন। তবে সলমন খানকে মাঝে মধ্যেই থানায় হাজিরা দিতে হয়, উপস্থিত থাকতে হয় হেয়ারিং-এর দিনে।